২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

অন্তিম শয়ানে মানিকগঞ্জের প্রবীণ সাংবাদিক তারা মিঞা

শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় চিরবিদায় নিলেন মানিকগঞ্জের প্রবীণ সাংবাদিক এম এ ওয়াহেদ তারা মিঞা। তিনি তৎকালীন পূর্বপাকিস্তান সাংবাদিক সমিতি মানিকগঞ্জ মহকুমা শাখার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ছিলেন। তার বাড়ি মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার বেতিলা-নালোড়া গ্রামে। রবিবার (৩১ মে) বাদ মাগরিব মানিকগঞ্জ দরবার শরীফে প্রথম ও মরহুমের নিজ গ্রামে বাদ এশা দ্বিতীয় জানাজার নামাজ শেষে যথাযথ মর্যাদায় স্থানীয় কবরাস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়।

এদিন বিকাল ৪টায় সাংবাদিক এম এ ওয়াহেদ তারা মিঞা মানিকগঞ্জ পৌর শহরের পূর্ব দাশড়ার নিজ বাসভবনে বার্ধক্যজনিত কারণে মারাযান। ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজেউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ২ পুত্র, ৪ মেয়ে ও নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

প্রবীণ এই সাংবাদিকের মৃত্যুর খবর পেয়ে পরিবার, আত্মীয় স্বজন ও জেলার রাজনৈতিক ও সাংবাদিক সমাজে শোকের ছায়া নেমে আসে। মরহুমের লাশ শেষ বারের মতো দেখতে অনেকেই তার বাড়িতে ছুটে যান। এসময় হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। অশ্রশিক্ত হয়ে পড়েন স্বজন ও শুভাকাঙ্খীরা।

সাংবাদিক এম এ ওয়াহেদ তারা মিঞার মৃত্যুতে মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট গোলাম মহীউদ্দীন, মানিকগঞ্জ জজকোর্টের পিপি অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম, মানিকগঞ্জ পৌরসভার মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম, সাবেক মেয়র মো. রমজান আলী, মানিকগঞ্জ ডায়াবেটিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সুলতানুল আজম খান আপেল, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সুদেব কুমার সাহা, মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম ছারোয়ার ছানু, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব চক্রবর্র্তী, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব চক্রবর্তী, সৃজনশীল লেখক সাংবাদিক সাইফুদ্দিন আহমেদ নান্নু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বিশ্বাস, বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি মানিকগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি মানবেন্দ্র চক্রবর্তী, সাবেক সভাপতি মতিউর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান বিশ্বাস, মানিকগঞ্জ সংবাদপত্র সম্পাদক পরিষদের সভাপতি সুরুজ খান, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটন, অনলাইন নিউজ পোর্টাল জনশক্তির প্রকাশক মোহাম্মাদ জসিম উদ্দিন সরকার, সম্পাদক ও সিঙ্গাইর উপজেলা সাংবাদিক সমিতির আহ্বায়ক মোবারক হোসেন, শিবালয় প্রেসক্লাবের সভাপতি বাবুল আকতার মঞ্জুর, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, দৌলতপুর প্রেসক্লাব সভাপতি জালাল উদ্দিন ভিকু, সাধারণ সম্পাদক শাহা আলম, সাটুরিয়া প্রেসক্লাব সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা খান ও জেলা আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এবং সামাজিক সংগঠনের নেতারা শোক প্রকাশ করে শোকসন্তোপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

এম এ ওয়াহেদ তারা মিঞা ১৯৫৮ সাল থেকে সাংবাদিকতা শুরু করেন। দৈনিক সংবাদ, মর্নিং নিউজ এবং পাকিস্তান বাই উইকলি পত্রিকায় কাজ করেছেন। তিনি ছিলেন মানিকগঞ্জের দ্বিতীয় বয়োজৈষ্ঠ সাংবাদিক। তাঁর আগে এই পেশায় আসেন খন্দকার মঞ্জুরুল হাসান শেলী।

সাংবাদিক এম এ ওয়াহেদ ছিলেন তৎকালীন পূর্বপাকিস্তান সাংবাদিক সমিতি মানিকগঞ্জ মহকুমা শাখার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। ১৯৬১ সাল থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্বে ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। মরহুম তারা মিঞার হাত ধরেই পরবর্তীতে মোহাম্মদ আসাদ, আব্দুল মোন্নাফ খান, জালাল উদ্দিন আহমেদ, প্রজেশকান্তি রায় সাংবাদিকতা শুরু করেন।

এম এ ওয়াহেদ তারা মিঞা সাংবাদিকতার পাশাপাশি সমাজ উন্নয়নেও বিশেষ ভূমিকা পালন করেছেন। তিনি ১৯৬১ সালে প্রতিষ্ঠিত বেতিলা হাই স্কুলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। স্কুলটিতে পরবর্তীতে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণী অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এই প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা কমিটির ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্বও পালন করেন তিনি।

আরও পড়ুন