২৯শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
  • প্রচ্ছদ
  • অশুভ শক্তি নির্মূলে ছাত্রলীগকে লড়াই করতে হবে: আব্দুর রহমান




  • অশুভ শক্তি নির্মূলে ছাত্রলীগকে লড়াই করতে হবে: আব্দুর রহমান

    সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলার দায়িত্ব ছাত্রলীগকেই নিতে হবে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বলেন, ছাত্রলীগের সামনে এখন লক্ষ্য একটাই বিএনপি নামক রাজনৈতিক দলের সামান্যতম অস্তিত্ব এই বাংলার মাটিতে না রাখা।

    মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ছাত্রলীগ কতৃর্ক আয়োজিত ‘১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস’ উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

    আব্দুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জীবনের উপর ১৯ বার হামলা হয়েছে। লক্ষ্য একটাই তাকে চিরতরে বিদায় করে দেয়া। তারই একটি ২১শে আগস্ট। এই হামলায় তারেক জিয়ার হুকুমে গ্রেনেড জ্বালিয়েছেন মুফতি হান্নান। হান্নান আক্ষেপ করে বলেছে তারেকের হুকুমেই গ্রেনেড হামলা হয়েছে। তার হলো যাবজ্জীবন, আমার হলো ফাঁসি! হায় বিচার।

    ছাত্রলীগের উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, তারেককে বাংলার মাটিতে ফিরিয়ে এনে তার ফাঁসি কার্যকর করতে হবে। সেই লড়াই ছাত্রলীগকে করে যেতে হবে।

    বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অস্ত্রের রাজনীতি নয় আদর্শের রাজনীতিতে বিশ্বাসী উল্লেখ করে আব্দুর রহমান বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদল, বিএনপি নামে কোনো অশুভ রাজনৈতিক শক্তি যেন না থাকে সেজন্য ছাত্রলীগকে নতুন করে প্রস্তুত হতে হবে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে আমাদেরকে এগিয়ে যেতে হবে।

    তিনি বলেন, স্পষ্ট করে বলতে চাই- জাতির জনকের খুনের সঙ্গে জিয়া শুধু জড়িতই নন বরং খুনের পরিকল্পনাও ছিল তারই। তার কাছে পাকিস্তানি ক্যাপ্টেনের পাঠানো চিঠি থেকে সে কথা আজ স্পষ্ট প্রমাণিত।

    আব্দুর রহমান বলেন, ৭৫-এ জাতির পিতার হত্যার বিচারের জন্য আমরা সংগ্রাম করেছিলাম। যতদিন পিতার খুনিদের বিচার এই মাটিতে না হবে ততোদিন আমরা ঘরে ফিরে যাব না, যাই নাই।

    আব্দুর রহমান বলেন, ১৯৭৪ সালে কৃত্রিম দুুর্ভিক্ষ তৈরী করা হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু আমেরিকার প্রেসিডেন্টের কাছে গিয়ে ছিলেন। তিনি তখন বাংলার মানুষের জন্য সাহায্য চেয়ে ছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘তুমি আমার বাংলার মানুষকে খাদ্য দাও, আমার বাংলার মানুষকে তুমি সাহায্য কর, আমার বাংলার মানুষকে তুমি কাপড় দাও। তখন আমেরিকার প্রেসিডেন্টের বলেছিলেন, শেখ মুজিব তোমার বাংলার মানুষকে খাদ্যে ও কাপড়ে পরিপূন্ন করে দেব। তোমার বাংলার মানুষকে অর্থ দিয়ে ভরে দেব। শুধু মাত্র আমার একটি অনুরোধ তোমাকে রাখতে হবে। তোমার সেন্ট মার্টিন দ্বীপে আমার সামরিক বাহিনীর ঘাটি তৈরীর ব্যবস্থা করে দাও। তখন বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘আমার বাংলার মানুষ গরীব হতে পারে, কিন্তু তুমি মনে রেখ, আমার বাংলার দামাল ছেলেরা নয় মাস যুদ্ধ করে এদেশকে স্বাধীন করেছে। আমার বাংলার ছেলেরা বেঁচে থাকতে কোনো দিনও সম্ভব না। এক ইঞ্চি মাটিও তোমাদের মাঝে তোলে দিতে পারি না।’

    আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমেরিকার সেই ষড়যন্ত্র, সেই দিন পাকিস্তানের পরাজিত শক্তির ষড়যন্ত্র সব কিছু মিলে ‘৭৫সালের ১৫ আগস্টের আমার পিতার লাশ ধানমন্ডির ৩২ নাম্বার বাড়ির সামনে ফেলে রেখে ছিল।

    Print Friendly, PDF & Email

    আরও পড়ুন