১৪ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

আইএইচটি বয়েজ হোস্টেলে ছাত্রলীগ নেতার অশালীন কার্যকলাপ! ভিডিও ভাইরাল

জনশক্তি রিপোর্ট: ছেলেদের হোস্টেলে মেয়েসহ অপ্রীতিকর অবস্থায় ধরা খেলেন ঢাকা ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনলজি (আইএইচটি) ছাত্রলীগের সভাপতি জসিম উদ্দীনের সহোদর ভাই ও হল ছাত্রলীগের সভাপতি রনি।

বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) সকালে আইএইচটির পুরাতন হলের ১০৪ নম্বর রুমে অশালীন কার্যকলাপ করার সময় সাধারণ ছাত্রদের হাতে আটক হন পুরাতন হল ছাত্রলীগের সভাপতি রণি ও তার প্রেমিকা ডেন্টাল বিভাগের ছাত্রী আল্পনা আক্তার।

এ ঘটনায় আটকদের আইনীশৃঙ্খলা বাহীনির হাতে তুলে না দিয়ে তাদের বের করে দেবার অভিযোগ উঠেছে প্রতিষ্ঠানের হল সুপার শাহীন, মাইক্রোবায়োলজির শিক্ষক আক্কাস উদ্দিন ও মাহমুদুল হোসেনের নামে।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল অশালীন কার্যকলাপে লিপ্ত থাকার সময়ের ভিডিও।

ছাত্রদের দাবি, শিক্ষকরা নানাসময় টাকা-পয়শা নিয়ে ছাত্রদের হলে এসব অশালীন কাজকর্ম করার সুযোগ তৈরি করে দেয়। এতে করে তাদের সিট বানিজ্য, ভর্তি বানিজ্য করার অবাধ সুযোগ বজায় থাকে।

এর আগেও মহিলা হোস্টেলে ঢুকে ছাত্রীকে ধর্ষণের চেস্টা চালায় রনি জানিয়ে এক ছাত্র জানান, সেসময়ও সেই ঘটনা ধামাচাপা দেয় শিক্ষকরা।

ঘটনা জানতে হোস্টেল সুপার শাহীন আহমেদকে ফোন করা হলে, তিনি ঘটনার সত্যতা অস্বীকার করে বলেন, তারা একসাথে বসে খাবার খাচ্ছিলো। কোন অশালীন কাজ হয় নি।

অশালীন কার্যকলাপের ভিডিও অনলাইনে ভাইরাল হয়েছে জানালে তিনি ফোন রেখে দেন।

এবিষয়ে জানতে মাইক্রোবায়োলজী বিভাগের শিক্ষক আক্কাস উদ্দীনকে ফোন করা হলে তিনি জানান, মেয়েটি ছেলে হোস্টেলে আসলে ছাত্ররা তাদের আটক করে। আমরা তিন শিক্ষক তাদের সেখান থেকে বের করে নিয়ে আসি।

কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কিনা প্রশ্নে তিনি বলেন, প্রিন্সিপাল স্যার আসার পর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঘটনা আরো পুরোনো দাবি করলেও প্রমান আছে প্রতিবেদকের এমন দাবিতে আইএইটচি ছাত্রলীগের সভাপতি ও আটক হওয়া রনির ভাই জসিম উদ্দীন বলেন, ঘটনার সময় আমি কলেজে ছিলাম না। কলেজে আসার পর আমি হোস্টেল সুপার শাহীন স্যারের কাছে শুনেছি রনি ও তার বান্ধবী হলের বারান্দায় খাবার খাচ্ছিলো। এমন সময় ছাত্ররা মেইন কেচি গেট বন্ধ করে দিয়ে স্যারদের ডেকে আনে। পরে শিক্ষকরা তাদের উদ্ধার করে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও ফুটেজ আছে ও ছাত্রদের ভাষ্য প্রমান হিসেবে আছে জানালে তিনি বলেন, আমি ঘটনা জানিনা। ঘটনার প্রমান পেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়।

/এআইএস

আরও পড়ুন