২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
মালয়েশিয়ায় কোকোর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকীতে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে জুলহাস হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন মালয়েশিয়ায় স্বাধীনতার সুবর্ন জয়ন্তী ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা। সিঙ্গাইর টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ শতভাগ পাশ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ বুকিত বিনতাং শাখার আলোচনা সভা তিন বছর পর বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেবার সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করায় দোয়া মাহফিল সিঙ্গাইরের জয়মন্টপে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অটোরিক্সার ইঞ্জিনে চাদর পেঁচিয়ে সিঙ্গাইরে ব্যবসায়ীর মৃত্যু সিঙ্গাইরে চোখ উপড়ানো ডাকাতের লাশ উদ্ধার সিঙ্গাইর সদরে ফ্রি রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কার্যক্রম অনুষ্ঠিত
  • প্রচ্ছদ
  • আজানের সময় স্পিকারে উচ্চ শব্দে গান: থামাতে বলায় হামলা, আহত ৫
  • আজানের সময় স্পিকারে উচ্চ শব্দে গান: থামাতে বলায় হামলা, আহত ৫

    জনশক্তি রিপোর্ট:

    ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় সন্ধ্যার দিকে একদল যুবক স্পিকারে উচ্চ শব্দে গান বাজিয়ে ক্রিকেট খেলছিল। মাগরিবের আজানের সময় হওয়ায় তাদের গান বন্ধ করতে বলেন এক মুসল্লি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই মুসল্লিকে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করেন ওই যুবকরা।

    পরে তাকে উদ্ধারে পরিবারের লোকজন এগিয়ে আসলে তাদেরও ওপর হামলায় চালায় যুবকরা। এই হামলার ঘটনায় নারীসহ ৫ জন আহত হয়েছেন।

    শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার কুটি ইউনিয়নের রামপুর গ্রামে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

    এদিকে এ ঘটনায় জড়িত থাকায় পুলিশ ৩ যুবককে গ্রেফতার করেছে। তারা হলেন- রামপুর গ্রামের ইকবাল হোসেন (২৬), হৃদয় মিয়া (২৪) ও পানিয়ারুপ গ্রামের কবির মিয়া (৩৩)।

    জানা যায়, উপজেলার কুটি ইউনিয়নের রামপুর গ্রামে পশ্চিমপাড়া মসজিদের পাশে গতকাল শুক্রবার বিকেলে স্পিকার উচ্চ শব্দে গান বাজিয়ে গ্রামের একদল যুবক ক্রিকেট খেলছিল। সন্ধ্যায় মাগরিবের আযানের সময় গান বন্ধ করতে অনুরোধ করেন গ্রামের আবুল কাসেম। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ক্রিকেট খেলোয়াড়রা আবুল কাসেমকে অশ্লীল গালাগালসহ বেধড়ক পেটাতে থাকে। এসময় তাকে বাড়ির লোকজন উদ্ধার করতে আসলে তাদের ওপরও আক্রমণ চালানো হয়।

    পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে সেখানে পুনরায় তাদের ওপর আক্রমণের চেষ্টা চালায় অভিযুক্তরা।

    খবর পেয়ে কসবা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। আর এ হামলায় জড়িত থাকায় ৩ জনকে গ্রেফতার করেন।

    এদিকে, গুরুতর আহতদের মধ্যে ফারুক মিয়া ও পারভীন আক্তারের অবস্থার অবনতি ঘটলে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রথমে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে ঢাকা কমফোর্ট হাসপাতালে পাঠানো হয়।

    কসবা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লোকমান হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, রামপুরের ঘটনায় ১২ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩ জনকে গ্রেফতার করে জেল-হাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

    আরও পড়ুন