২৫শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

আশুলিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি জয়, সাধারণ সম্পাদক লিটন

জনশক্তি ডেস্ক:

ঢাকার সাভারের আশুলিয়া প্রেসক্লাবের নির্বাচনে মোজাফ্ফর হোসেন জয় সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জহিরুল ইসলাম লিটন নির্বাচিত হয়েছেন। রবিবার (৩ জানুয়ারি) সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত উৎসবমুখর পরিবেশে প্রেসক্লাবের হল রুমে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে ৫১ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ নবনির্বাচিত সকলকে উষ্ণ অভিনন্দন জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যাবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এমপি, সাভার প্রেসক্লাব সভাপতি নাজমুস সাকিব ও সাধারণ সম্পাদক গোবিন্দ আচার্য্যসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ।

মোজাফ্ফর হোসেন জয় ২২ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী শেফালী আক্তার মিতু ১৫ ভোট এবং মাহ্ফুজুর রহমান নিপু পেয়েছেন ১২ ভোট।

জহিরুল ইসলাম লিটন ২৭ ভোট পেয়ে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী লোকমান হোসেন খোকা ২১ ভোট এবং লাইজু আহমেদ পেয়েছেন ০৩ ভোট।

মেহেদী হাসান মিঠু ২২ ভোট ও ওমর ফারুক ২০ ভোট পেয়ে সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী মঞ্জুর মোর্শেদ চৌধুরী ১৬ ভোট এবং শহিদুল ইসলাম ডাব্লিউ পেয়েছেন ১০ ভোট।

ওবায়দুর রহমান লিটন ২৭ ভোট পেয়ে যুগ্মসাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী শাহিনুর রহমান শাহীন পেয়েছেন ২৩ ভোট।

আমিনুল ইসলাম ২৪ ভোট পেয়ে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী আশরাফ হোসেন কামাল ১৭ ভোট এবং সোহেল হোসেন পেয়েছেন ০৫ ভোট।

তুহিন আহমেদ ৩০ ভোট পেয়ে কোষাধ্যক্ষ নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী রাকিব হাসান জিল্লুর পেয়েছেন ১৭ ভোট।

মনির মন্ডল ২২ ভোট পেয়ে দপ্তর সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিনয় কৃষ্ঞ ১৭ ভোট ও আল মামুন পেয়েছেন ১০ ভোট।

মেহেদী হাসান মুন্সী ২৯ ভোট পেয়ে প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী আবুল হায়াত বাচ্চু পেয়েছেন ২০ ভোট।

নজরুল ইসলাম মানিক ২০ ভোট পেয়ে সাংস্কৃতিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী সোহেল হোসেন ১৪ ভোট ও খন্দকার অপু পেয়েছেন ১২ ভোট।

জাহাঙ্গীর আলম রাজু ২৮ ভোট, আলী আজম সরকার ২৭ ও জাহিদ হাসান শাকিল ২২ ভোট পেয়ে কার্যকরী পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী আবুল কাশেম ১৯ ভোট, এ কে এম কামরুজ্জামান ১৮ ভোট ও ইফতেখার আলম জাহাঙ্গীর পেয়েছেন ১৫ ভোট।

নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন অপু ওহাব, জাকির হোসেন ও মনিরুজ্জামান।

আরও পড়ুন