২১শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

করোনায় মানবিক সহায়তা দিয়ে প্রশংসিত শিল্পপতি সালাম চৌধুরী

মোবারক হোসেন:

চলমান করোনায় কর্মহীন ও অভাবী জনগোষ্ঠীকে মানবিক সহায়তার স্বীকৃতি স্বরূপ মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসকের প্রশংসাপত্র পেয়েছেন শিল্পপতি সালাম চৌধুরী। সম্প্রতি জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে সমাজ হিতৈষী এই শিল্পপতিকে প্রশংসাপত্র দেওয়া হয়।

ইঞ্জিনিয়ার সালাম চৌধুরী মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ সদস্য, বিজিএমএ’র সাবেক পরিচালক ও পোশাক শিল্পপ্রতিষ্ঠান অ্যাডভ্যান্স অ্যাটোয়ার লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তার বাড়ি জেলার হরিরামপুর উপজেলার কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের কুশিয়ারচর গ্রামে। তিনি প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ সারা বছরই নিজ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারি ও এলাকার অসহায় দুস্থ মানুষের বিপদ-অাপদে পাশে দাঁড়ান ও সাহায্য সহযোগীতা করেন।

জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস স্বাক্ষরিত প্রশংসাপত্রে বলা হয়, বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসে শ্রমজীবি খেটে খাওয়া জনগোষ্ঠী ও সমাজের নানা শ্রেণী পেশার মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়ে। তাদের খাদ্য চাহিদা পূরণ ও দৈনন্দিন নুন্যতম খরচ মেটানোর জন্য সরকারি ভাবে খাদ্যসামগ্রীসহ নানা সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। সরকারি সহায়তার পাশাপাশি বেসরকারি ভাবে দানশীল ও ধনাঢ্য ব্যক্তিবর্গের নিকট থেকে জেলা প্রশাসকের ত্রাণ তহবিলে নগদ অর্থ, খাদ্য সামগ্রী (চাল, ডাল, লবন, তেল, আটা, আলু, চিড়া) গ্রহণ করা হয়েছে। জাতীয় এই সংকটকালে আপনি (সালাম চৌধুরী) খেটে খাওয়া শ্রমজীবি জনগোষ্ঠী ও সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার অভাবী মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে যে মহানুভবতা দেখিয়েছেন তা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। জেলার অসহায় দরিদ্র মানুষকে সহায়তার জন্য জেলা প্রশাসক হিসেবে আপনাকে আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি।

প্রশংসাপত্রে জেলা প্রশাসক আরো বলেন, আমার বিশ্বাস, বৈশ্বিক মহামারি করোনায় আপনি যেভাবে মানিকগঞ্জবাসীর পাশে ছিলেন, ভবিষ্যতেও থাকবেন। যে কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ-দর্বিপাকে আপনার মানবিকতায় মানিকগঞ্জবাসী কৃতজ্ঞ থাকবে। মহান আল্লাহ তায়ালা আপনার মঙ্গল করুন।

করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের প্রথম দিকে পারসোনাল প্রোটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই)বা ব্যক্তিগত সুরক্ষা) সরঞ্জামের অভাবে চিকিৎসক, পুলিশ ও গণমাধ্যম কর্মীরা যখন পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে পারছিলেন না। ঠিক সেই সময় ব্যক্তিগত সুরক্ষা পোশাক (পিপিই) নিয়ে করোনা যোদ্ধাদের পাশে দাঁড়ান ইঞ্জিনিয়ার সালাম চৌধুরী। তিনি ঢাকা ও মানিকগঞ্জ জেলায় কর্মরত, পুলিশ প্রশাসন, চিকিৎসক, গণমাধ্যমকর্মী ও সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের পাঁচ শতাধিক পিপিই প্রদান করে মহানুভবতার পরিচয় দেন। এ ছাড়া করোনায় জেলা প্রশাসকের ত্রাণ তহবিলে নগদ অর্থ প্রদানসহ নিজ প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী ও জেলার বিপুল পরিমান অভাবী মানুষকে খাদ্য সহায়তা দেন তিনি।

ইঞ্জিনিয়ার সালাম চৌধুরী বলেন, জীবন ও জীবিকার যুদ্ধে আমরা করব জয়। এই উপলব্ধি থেকেই দেশের সংকটকালীন সময়ে চেষ্টা করেছি শ্রমজীবি অসহায় মানুষ ও করোনা যোদ্ধাদের পাশে থাকার। তাছাড়া মানুষ হিসেবে এটা আমার সামাজিক ও নৈতিক কর্তব্য। ভাল কাজ করলে একদিকে সৃষ্টিকর্তা খুশি হয়, অন্যদিকে বিপদগ্রস্থ মানুষও উপকৃত হয়। মানবিক কাজের জন্য জেলা প্রশাসক মহোদয়ের কাছ থেকে প্রশংসাপত্র পাওয়া আমার জন্য অনেক বড় পাওয়া। এই স্বীকৃতি আমার মানবিক দায়িত্ববোধ আরও বৃদ্ধি পাবে।

আরও পড়ুন