২৪শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
  • প্রচ্ছদ
  • করোনা বিস্তাররোধে প্রশংসাপত্র পেলেন এসিল্যান্ড মেহের নিগার




  • করোনা বিস্তাররোধে প্রশংসাপত্র পেলেন এসিল্যান্ড মেহের নিগার

    মোবারক হোসেন:

    মরণব্যাধি করোনাভাইরাস বিস্তাররোধে মাঠ পর্যায়ে বিশেষ অবদান রাখায় প্রশংসাপত্র পেয়েছেন মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহের নিগার সুলতানা। কভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধে অকুতোভয় সমর-যোদ্ধা হিসেবে গত ১০ জুন  ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী স্বাক্ষরিত  এই প্রশংসাপত্র পান তিনি।

    মেহের নিগার সুলতানা ৩৪তম বিসিএস কর্মকর্তা। তার বাড়ি দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার জমিরহাট গ্রামে। বাবার নাম মো: মহসীন আলী ও মা মোসাম্মাৎ তাইয়েবাতুন নেছা। চলতি বছরের ২৭ জানুয়ারি সিঙ্গাইর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে যোগদান করেন তিনি। দায়িত্ব নেওয়ার পর উদ্যোগ নেন বেদখল হওয়া সরকারি সম্পত্তি উদ্ধার, অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ ও দালালমুক্ত একটি মডেল উপজেলা ভূমি অফিস হিসেবে গড়ে তোলার। অল্প কিছুদিনের মধ্যেই পাল্টে যায় উপজেলার ভূমি সেবার দৃশ্যপট। নানা প্রতিকুলতার মধ্যেও কর্মদক্ষতা ও সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে একজন যোগ্য ও দক্ষ সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে সুনাম অর্জন করেন মেহের নিগার সুলতানা।

    এরই মধ্যে গত মার্চ মাসে সারাদেশে শুরু হয় মরণব্যাধি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব। এই ব্যাধি থেকে রেহাই পায়নি সিঙ্গাইরবাসীও। সোমবার(১৫ জুন) পর্যন্ত এ উপজেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারাযান দুইজন। আক্রান্ত হয়েছেন ৮১ জন। উপজেলাবাসীর এই ক্রান্তিকালে স্থানীয় প্রশাসন, চিকিৎসক ও পুলিশ বাহিনীর পাশাপাশি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে কাজ করছেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহের নিগার সুলতানা। তিনি জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের দিকনির্দেশনায় নিজ দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সাথে নিয়ে মাঠঘাট চষে বেড়াচ্ছেন। সামাজিক দুরুত্ব নিশ্চিতকরণ, জনসচেতন সৃষ্টি, প্রবাসী ও বহিরাগতদের হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিতকরণ, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার দর নিয়ন্ত্রণ, ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা ও অসহায় কর্মহীন অভাবী মানুষের ঘরে মানবিক সহায়তা ও খাদ্যসামগ্রী পৌছে দিচ্ছেন তিনি।

    কভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধে অকুতোভয় সমর-যোদ্ধা হিসেবে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন ও কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ অকুতোভয় এই করোনাযোদ্ধা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মেহের নিগার সুলতানাকে ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে প্রসংসাপত্র দেওয়া হয়। গত ১০ জুন  ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী স্বাক্ষরিত  এই প্রশংসাপত্র দেওয়া হয় তাকে।

    প্রসংসাপত্রে বলা হয়, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে অবিশ্রান্ত ঝর্ণাধারার মতো আপনি কর্মচঞ্চল। প্রত্যুৎপন্নমতিত্বের নিকট নিত্য-নতুন সমস্যার তাৎক্ষণিক ও সহজ সমাধান সত্যিই বিস্ময়কর। নিজের স্বামী ও আদরের নিস্পাপ শিশুসন্তান ও পিতামাতার মুল্যবান জীবনের দিকে না তাকিয়ে, মৃত্যু-ঝুকি মাথায় নিয়ে কেবল জনগণের জন্য সেবা, মানবতা ও মহানুভবতার পরিচয় দিয়ে অন্যান্য উদাহারণ সৃষ্টি করেছেন। এই মানবিক কর্মকাণ্ডে সরাসরি সম্পৃক্ততার জন্য আপনাকে এবং আপনার মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। ভূমি মন্ত্রণালয় আপনার সঙ্গে আছে এবং থাকবে। আপনার ও আপনার সহকর্মী এবং তাদের পারিবারের সবার জন্য সাফল্য কামনা করছি। এই জীবন থেকে নেয়া অভিজ্ঞতার ঝুলি নিয়ে ডায়েরি লিখে রাখলে অবসর সময়ে অনেক জীবনমুখী গল্প আপনি দেশবাসীকে উপহার দিতে পারবেন।

    উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহের নিগার সুলতানা বলেন, কাজের স্বীকৃতি পেলে দায়িত্ববোধ আরো বেড়ে যায়। করোনাযুদ্ধে কাজ করতে জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস স্যার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুনা লায়লা স্যার সবসময় আমাকে সাহস ও অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে। তাদের দিকনির্দেশনা ও সহযোগীতায় দেশপ্রেম এবং নিজের দায়িত্ববোধ থেকে মা-বাবা ও স্বামী-সন্তান রেখে করোনা মোকাবেলায় দিন-রাত কাজ করছি। এই যুদ্ধে জয়ী হলে আমার ও দেশের মানুষের এই শ্রম ঘাম সার্থক হবে। তিনি আরও বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে মাঠে কাজ করতে শুধু ঝুঁকি নয়, মৃত্যু ঝুঁকি রয়েছে। প্রতিটি মুহুর্তে মৃত্যু যেন হাতছানি দেয়। এরপরও এই যুদ্ধে আমাদের জয়ী হতে হবে। নিজে বাঁচতে হবে ও দেশবাসীকে বাঁচাতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ ও দেশপ্রেম থেকেই জীবন বাজি রেখে করোনাযুদ্ধে লড়ছি। করোনাভাইরাস নির্মুল না হওয়া পর্যন্ত লড়ে যাব ইনশাআল্লাহ।

    Print Friendly, PDF & Email

    আরও পড়ুন