১৭ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

খাল-পুকুর সংস্কারের নামে পাড় কেটেই বিল তোলা হয়: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পে খাল কাটা ও পুকুর খনন-সংস্কারের নামে শুধু পাড়গুলো হালকা কেটে বিল তোলা হয়। পুকুরের গভীরতা খনন না করে চারপাশ পরিষ্কার করেই বিল নেওয়া হয়েছে।

আজ রবিবার (২১ জুন) ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে শেরে বাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় এ কথা বলেন তিনি। পরে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এ তথ্য জানান।
এম এ মান্নান জানান, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আমাদের কাছে অভিযোগ আছে পাড় কেটেই পুকুর কাটার বিল নেওয়া হয়। পুকুরের চারপাশ পরিষ্কার করেই বিল নেওয়া হয়। এ সময় বিষয়গুলো ভালোভাবে নজরদারির নির্দেশ দেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কাছে অভিযোগ আসছে, ঠিকাদার দিয়ে কাজ করানো হয়। তারা পুকুরের চারপাশ পরিষ্কার করে কিন্তু নিচে যায় না। যদি বলে মাটি কাটছে, মাটি গেল কোথায়? পুকুর, খাল থেকে যে মাটি উঠানো হবে, সে মাটি কোথায় গেল খোঁজ নিয়ে দেখুন। ভালো করে পরখ করে দেখুন, যাতে ছেঁটেছুটে না বলে পুকুর কেটেছি।

তিনি বলেন, এটা অত্যন্ত পুরোনো একটা টিকস। এটা নিয়ে আমিও পরিচিত মোটামুটি। আমি নিজে দেখেছি এটা। এটা সম্পর্কে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) জানেন এবং খুব স্ট্রং মন্তব্য করেছেন।
এর আগে একনেক সভায় এলাকার অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক কার্যক্রমের গতি বাড়াতে ‘পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প-৩’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ২৮০ এমপির জন্য বরাদ্দ ৬৪৭৭ কোটি টাকা বরাদ্দ ও প্রায় ৯ হাজার ৪৬০ কোটি ৯ লাখ টাকা ব্যয় সম্বলিত ১০টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

পরে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারের মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, সাবেক ও বর্তমান সাংসদসহ দেশে এবং প্রবাসে করোনা ভাইরাসের কারণে মৃত্যুবরণকারী বাংলাদেশিদের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন তিনি এবং এর কবল থেকে সকলের মুক্তির জন্য মহান আল্লাহর দরবারে প্রার্থনা করেন।

আরও পড়ুন