২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

গাজিখালী নদীতে নিখোঁজ কৃষকের সন্ধান মেলেনি

জনশক্তি রিপোর্ট:

ঢাকার ধামরাইয়ে বালিয়া ইউনিয়নে গাজিখালী নদীতে ঘাসের বোঝা নিয়ে সাঁতরে পারাপারের সময় পানিতে ডুবে নিখোঁজ কৃষককে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এদিকে রাত হয়ে যাওয়ায় আজ (১ জুলাই) উদ্ধার অভিযান বন্ধ করা হয়েছে। আগামীকাল সকাল ৫টায় আবারো অভিযান শুরু করা হবে।

বুধবার (১ জুলাই) রাত ৯টার দিকে আরিচা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মজিবর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন। এর আগে রাত সাড়ে ৭টার দিকে উদ্ধার অভিযান স্থগিত করা হয়।

এর আগে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের রামরাবন গ্রামে গাজিখালী নদীতে নিখোঁজ হন ওই কৃষক। পরে বিকেল ৫টার দিকে তাকে উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট অভিযান শুরু করে। এরপর সাড়ে ৬টার দিকে মানিকগঞ্জের আরিচা ঘাট ফায়ার সার্ভিসের আরেকটি ডুবুরি দল উদ্ধার অভিযানে যোগ দেয়।

নিখোঁজ কৃষক বাদল চন্দ্র মনিদাস (৫৫) ধামরাই উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের রামরাবন গ্রামের মৃত নিমাই চন্দ্র মনিদাসের ছেলে।

নিখোঁজের ছেলে সুকান্ত চন্দ্র মনিদাস জানান, প্রতিদিন গাজিখালী নদীর ওপার থেকে গরুর জন্য ঘাস কেটে নিয়ে আসেন তিনি। কিন্তু আজ তার বাবা বাদল চন্দ্র মনিদাস ঘাস কাঁটতে নদীর ওপারে যান। পরে ঘাসের বোঝা নিয়ে সাঁতরে নদী পারাপারের সময় স্রোতের পানিতে তলিয়ে যান তিনি। পরে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ এসে নদীতে তার সন্ধান শুরু করে।

এদিকে ধামরাই ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার হুমায়ন কবির জানান, বিকেল সাড়ে প্রায় ৩টার দিকে ঘাসের বোঝা নিয়ে গাজিখালি নদীতে পারপারের সময় প্রবল স্রোতে ডুবে যান বাদল চন্দ্র দাস নামে ওই বৃদ্ধ কৃষক। পরে খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজ শুরু করে। একই সঙ্গে মানিকগঞ্জের আরিচা ঘাট ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবুরি দলকে তলব করা হয়। পরে ওই দলটি এসে উদ্ধার অভিযানে যোগ দেয়।

তবে নদীতে প্রবল স্রোতের পাশাপাশি কচুরিপানার সংখ্যা বেশি থাকায় নিখোঁজ বাদল চন্দ্র দাসের এখনও সন্ধান পাওয়া যায়নি বলেও জানান ফায়ার সার্ভিসের এই কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন