২৬শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
  • প্রচ্ছদ
  • গ্রামে গ্রামে যাচ্ছে টুটুল-টুলুর ত্রাণবাহী গাড়ি




  • গ্রামে গ্রামে যাচ্ছে টুটুল-টুলুর ত্রাণবাহী গাড়ি

    মোবারক হোসেন:

    মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার গ্রামে গ্রামে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল ও তার ভাই শিল্পপতি দেওয়ান জাহিদ আহমেদ টুলুর ত্রানবাহী গাড়ি। এসব ত্রাণসামগ্রী উপজেলার কর্মহীন ও অসহায় দরিদ্র মানুষের মাঝে বিতরণের লক্ষে এই দুই সহোদর রবিবার (১২ এপ্রিল) উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মাজেদ খান, জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট লুৎফর রহমান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সায়েদুল ইসলামের কাছে হস্তান্তর করেন। সংশ্লিষ্ট এলাকার দলীয় নেতাকর্মীরা ত্রাণসামগ্রী অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌছে  দিবেন। খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল, আলু, তেল, ডাল, পেঁয়াজ ও খারযুক্ত সাবানসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য।

    করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের প্রথম থেকেই উপজেলার কর্মহীন ও অভাবী মানুষদের পাশে দাঁড়ান কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল ও শিল্পপতি দেওয়ান জাহিদ আহমেদ টুলু। এরই অংশ হিসেবে রবিবার (১২ এপ্রিল) উপজেলার একটি পৌরসভা ও ১১টি ইউনিয়নের ৩ হাজার ৬০০  মানুষের ত্রাণসামগ্রী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মাজেদ খান, জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট লুৎফর রহমান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সায়েদুল ইসলামের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

    এসময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ খান উজ্জল, সাংগঠনিক সম্পাদক ওবায়েদুল হক, উপপ্রচার সম্পাদক ইউপি সদস্য মো: শাহজাহান ও সদস্য তফছের আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

    এসব ত্রাণসামগ্রী কর্মহীন ও অসহায় দরিদ্র মানুষের মাঝে বিতরণের লক্ষে ট্রাকে করে সংশ্লিষ্ট এলাকার দলীয় নেতাকর্মীর হাতে পৌছে দেওয়া হচ্ছে। ত্রাণ কার্যক্রমে সার্বিক দায়িত্ব পালন করছেন বায়রা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক মাহবুল আলম জুয়েল এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আবু বকর সিদ্দিক।

    মাহবুল আলম জুয়েল বলেন, করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই উপজেলার কর্মহীন ও অভাবী মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছেন দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল ও তার ভাই শিল্পপতি দেওয়ান জাহিদ আহমেদ টুলু। এ পর্যন্ত তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে উপজেলার একটি পৌরসভা ও ১১ টি ইউনিয়নে পাঁচ সহাস্রাধিক কর্মহীন অসহায় মানুষকে নগদ অর্থ ও খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে। করোনাভাইরাস দুর না হওয়া পর্যন্ত ত্রান বিতরণ অব্যাহত থাকবে জানিয়েছেন শিল্পপতি দেওয়ান জাহিদ আহম্মেদ টুলু।

    উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সায়েদুল ইসলাম বলেন, দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল ও শিল্পপতি দেওয়ান জাহিদ আহমেদ টুলুর মতো জনদরদী মানুষ আমাদের সমাজে খুবই বিরল। তারা নিজের অর্জিত অর্থ সম্পদ অসহায় মানুষকে বিলিয়ে দেওয়ার মাঝে আনন্দ খুজে পান। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও মানুষের বিপদ-আপদসহ সারা বছরই এই দুই সহোদর স্কুল-কলেজ, মসজিদ-মন্দির, মাদ্রাসা ও এতিমখানা, সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানে দান অনুদান দিয়ে থাকেন।

    দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল ও শিল্পপতি দেওয়ান জাহিদ আহমেদ টুলু বলেন, আর্তমানবতার সেবা ও মানুষের কল্যাণে কাজ করলে যে আত্মতৃপ্তি পাওয়া যায়, তা অন্য কিছুতে নেই। বিপদের সময় সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর দু:খ-কষ্ট শুনলে আমাদের মনে পীড়া দেয়। এই উপলব্ধি থেকে সাধ্য অনুযায়ী চেষ্টা করি মানুষকে সাহায্য সহযোগীতা করার। তা ছাড়া মানুষ হিসেবে এটা আমাদের সামাজিক ও নৈতিক কর্তব্যও। এসব কাজের মাধ্যমে একদিকে সৃষ্টিকর্তা খুশি হয়, অন্যদিকে বিপদগ্রস্থ মানুষ উপকৃত হয়।

    Print Friendly, PDF & Email

    আরও পড়ুন