২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
  • প্রচ্ছদ
  • চরফ্যাশনে ইউপি চেয়ারম্যান- গ্রামবাসী হাতাহাতি, আটক-২




  • চরফ্যাশনে ইউপি চেয়ারম্যান- গ্রামবাসী হাতাহাতি, আটক-২

    এম. মাহাবুবুর রহমান নাজমুল, জেলা প্রতিনিধি, ভোলা ।।

    চরফ্যাশন উপজেলা দুলারহাট থানা নুরাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে একই গ্রামের দেলোয়ার গংয়ের হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এব্যাপরে দুলারহাট থানা পুলিশ দুই জনকে আটক করেছে।
    স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নুরাবাদ ইউনিয়নের চর-তোফাজ্জল গ্রামের আবদুর রব ফিটারের কাছ একই গ্রামের জুলফিকার আলী ভূট্রো জমি ক্রয় করলেও দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এঘটনা নিয়ে ভূট্রো দুলারহাট থানা অভিযোগ করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সার্ভেয়ার ও দুইজন পুলিশ নিয়ে জমি মাপতে শুরু করেন। এমন মুহুত্বে স্থানীয় নুরাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ঘটনাস্থলে এসে হুমকি স্বরূপ পরিষদ সংলগ্ন দোকানপাট বন্ধ করে দিয়ে দোলোয়ার ও আবদুরবের উপর হামলা চালায়। প্রতিপক্ষরাও পাল্টা চেয়ারম্যানের উপর হামলা চালায়। এতে দু‘গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পুলিশ দোলোয়ার হোসেন ও আবদু রব কে আটক করে থানা নিয়ে যায়।
    প্রত্যেক্ষদর্শীরা জানান, আবদুর রব ও দোলোয়ারের উপর চেয়ারম্যান নিজে হামলা চালায়। আবার চেয়ারম্যান পুলিশকে খবর দিয়ে তাদেরকে ধরিয়ে দেয়। অর্থাৎ যারা মার খেলো তাদেরই পুলিশের হাতে আটক হতে হল।
    দুলারহাট বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রিপন বলেন, বেলা ১টায় দিকে জমি মাপ নিয়ে চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে গ্রাম বাসীর হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পুলিশ দুই জনকে আটক করেছে।
    নুরাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, পাঁচ সদস্যের একটি চক্র ভুয়া বন্দোবস্তের নামে জোড় জুলূম জমি দখল এবং বিক্রি করাই তাদের কাজ। আমার ইউনিয়ন পরিষদের জমি বন্দোবস্ত নিয়ে দোলোয়ার,আবদুর রব এবং জুলফিকার আলী ভূট্রো দখলের পায়তারা করছে। আমি দখলে বাঁধা দিলে তারা আমার আদালত চলাকালীন পরিষদে ঢুকে হুমকি দেয় এবং তথ্য সেবাকারীর গায়ে হাত দেয়। ফলে পুলিশ তাদেরকে আটক করে। আমি তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ লিখতে দিয়েছি।
    দুলাহাট থানা দায়িত্ব থাকা উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) বাদল বলেন, চেয়ারম্যানের সাথে তর্কবির্তক করায় বড় ধরনের সংঘর্ষে থেকে নিয়ন্ত্রণ করতে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানা রাখা হয়েছে।
    অফিসার ইনচার্জ ওসি মিজানুর রহমান বলেন, আমার থানার এসআই বাদল ঘটনাস্থলে আছে। তার কাছে থেকে জেনে নিন। আমি ঘটনাস্থলে নাই। বিচ্ছিন্নদ্বীপ মুজিব নগর আছি।

    Print Friendly, PDF & Email

    আরও পড়ুন