৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |
  • প্রচ্ছদ
  • ‘জনগণের ট্যাক্সের টাকায় টিভিতে প্রচার চালাচ্ছে আওয়ামী লীগ’
  • ‘জনগণের ট্যাক্সের টাকায় টিভিতে প্রচার চালাচ্ছে আওয়ামী লীগ’

    জনশক্তি রিপোর্ট: জনগণের ট্যাক্সের টাকায় টেলিভিশন চ্যানেলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পক্ষে প্রচারণা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, ‘টিভি খুললেই দেখা যায়- অনেক চ্যানেলে ‘থ্যাঙ্ক ইউ পিএম’ এর অ্যাডভারটাইজমেন্ট চলছে। কিছু বিজ্ঞাপনের পর বোঝাও যায় না, বিজ্ঞাপনদাতা কে? কিছু বিজ্ঞাপনের পর বোঝা যায় যে, বিজ্ঞাপনদাতা মন্ত্রণালয়।’

    বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন রিজভী।

    রিজভীর অভিযোগ, ‘এ বিজ্ঞাপন তো দেশের মানুষের ট্যাক্সের টাকায় প্রচারিত হচ্ছে। আর বিজ্ঞাপন প্রচার করে আওয়ামী লীগ ভোটের সুবিধা নেবে। এটা নির্বাচন আচরণবিধির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। এ বিজ্ঞাপন প্রচারের মাধ্যমে সরকারি টাকায় আওয়ামী লীগের পক্ষে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। নির্বাচন কমিশন এসব দেখেও না দেখার ভান করছে। অবিলম্বে সরকারি টাকায় আওয়ামী লীগের পক্ষে এসব প্রচারণা বন্ধের জোর দাবি জানাচ্ছি। এছাড়া গণমাধ্যমে সকল দলের সমান সুযোগের ব্যবস্থা নেওয়ার আহবান জানাচ্ছি।’

    ‘নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর এ ধরণের বিজ্ঞাপন প্রচারে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘিত হচ্ছে কি না? নির্বাচন সামনে রেখে এখন কেন সরকারি অর্থে এ ধরণের প্রচার চালু রাখা হচ্ছে?’ প্রশ্ন করেন রিজভী।

    সংবাদ সম্মেলনে একাদশ সংসদ নির্বাচনে গণমাধ্যমকে নির্বাচন কমিশন (ইসি) নিয়ন্ত্রণ করতে চায় বলে দাবি করেন রিজভী। এজন্য ভোট কেন্দ্র থেকে সংবাদ মাধ্যমগুলোকে সরাসরি সম্প্রচার বন্ধের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে দাবি তার।

    মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেছিলেন, সাংবাদিকের ব্যাপারে আমাদের একটা নীতিমালা আছে সেই নীতিমালা অনুসারে উনারা ভোটকেন্দ্রের ভেতরে ঢুকতে পারবেন অল্প সময়ের জন্য। ছবিও নিতে পারবেন। তবে কেউ সরাসরি সম্প্রচার করতে পারবেন না। এ ব্যাপারে রির্টানিং কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

    গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশে এমন ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে দাবি করে রিজভী বলেন, ‘আমরা শুরু থেকেই বলে আসছি বর্তমান নির্বাচন কমিশন সরকারের খয়ের খাঁ। সরকারের হুকুমে নানা নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থা নিচ্ছে। এমনিতে একের পর এক কালাকানুন তৈরি করে গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করছে সরকার। গণমাধ্যমের উপর চলছে সরকারি নিবর্তনমূলক খড়গ।’

    আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এখনো বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করছে বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন রিজভী। বলেন, ‘এখনও সরকারের নির্দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক মামলা, বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার ও বাড়িতে বাড়িতে হামলা ও হুমকি ধামকি অব্যাহত আছে। গতকালও একজন নির্বাচন কমিশনার বলেছেন-আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্বাচন কমিশনের অধীনে আনা দরকার। কমিশনারের কথায় পরিষ্কার হলো যে, কমিশনের কথা মানছে না আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।’

    জনশক্তি/এস

    আরও পড়ুন

    [X]