২৪শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
  • প্রচ্ছদ
  • জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে সভা করেছে বিএনপি ফিরেনস শাখা




  • জনশক্তি, ইতালি:

    জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে সভা করেছে বিএনপি ফিরেনস শাখা

    জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভা করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি ফিরেনস শাখা।১০ইং নভেম্বর রবিবার ফিরেনসের একটি রেস্টুরেন্টে আয়োজিত সভায় শুরুতেই পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি সম্মান ও সাদেক হোসেন খোকার সন্মানে সবাই দাড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন। খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও জিয়াউর রহমানের আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

    ১০ইং নভেম্বর রবিবার ফিরেনসের একটি রেস্টুরেন্টে আয়োজিত সভায় শুরুতেই পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি সম্মান ও সাদেক হোসেন খোকার সন্মানে সবাই দাড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন। খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও জিয়াউর রহমানের আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

    সভায় সভাপতিত্ব করেন, সংগঠনের সভাপতি জাহাংগীর আলম ভূঁইয়া সাগর। সভাটি পরিচালনা করেন, সাধারন সম্পাদক জসিম উদ্দিন জসিম ওযুগ্ন সম্পাদক গাজী মনির আহমেদ। এতে, প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ইতালি বিএনপির সহ সাধারণ সম্পাদক ও প্রধান উপদেষ্টা ওমর শিকদার । বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন ইতালী বিএনপির সহ সেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক ও উপদেষ্টা মনির হোসেন বিডিআর। শরিফ চৌধুরী, সদস্য ইতালী বিএনপি।আবুল হোসেন ও আবুল হোসাইন উপদেষ্টা ফিরেনস বিএনপি ।প্রধান বক্তা হাবীবুর রহমান জিয়া সি: সহ সভাপতি ফিরেনস বিএনপি ।বিশেষ বক্তা সাইফুল করিম বাবর,মনির খান,মিজানুর রহমান সহ সভাপতি সহ সভাপতি ফিরেনস বিএনপি।

    শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, আরিফুল হক সরকার সহ সভাপতি ।যুগ্ন সম্পাদক জাফিক মোল্লা।সংগঠনের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান ,আল ইমরান লাবলু,সাহাদাত ,শাহাবুদ্দিন ,বাবুল ,মিজান সহ আরো অনেকে।আমাদের সাথে টেলিকন্ফারেন্স করে দল কে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়ার দিকনির্দেশনা দিয়েছেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ,দেশনায়ক তারেক রহমানের আস্তাভাজন নেতা জনাব , মাহিদুর রহমান ,ইতালী বিএনপির সন্মানিত সভাপতি হাজী আবদুর রাজ্জাক ও সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক ,জিয়াপরিবারের আস্তাভাজন নেতা,জনাব ঢালী নাসির উদ্দিন এবং ইতালী বিএনপির সেরা বক্তা যুগ্ন সাধারন সম্পাদক জনাব,শাহ তোহিদ কাদের।
    দেশ বিদেশে আন্দোলন গড়ে তুলে অনির্বাচিত সরকারের পতন ঘটিয়ে তত্তাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবীতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন করার আহ্বান জানান বক্তারা।

    সভায় বক্তারা বলেন, বহু দলীয় গনতন্তের প্রবর্তক শহীদ রাষ্ট্র পতি জিয়াউর রহমান ,১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ব্রিগেডিয়ার খালেদ মোশারফ সামরিক বাহিনীতে একটি অভ্যুত্থান ঘটান। একই সময় সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে গৃহবন্দি করা হয়। মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান সাধারণ সৈনিকদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন। সাধারণ সৈনিকরা জিয়াউর রহমানকে বন্দি করা এবং খালেদ মোশারফের অভ্যুত্থানকে সহজভাবে মেনে নেয়নি। তারা স্বতঃস্ফুর্তভাবে ৬ নভেম্বরের মধ্যরাতের পর কামানের গোলাবর্ষণ করে সর্বাত্মক বিদ্রোহের সূচনা করে। ৭ নভেম্বর তারা জিয়াউর রহমানকে বন্দিদশা থেকে মুক্ত করে। খালেদ মোশারফ এবং তার সহযোগীরা পালাতে গিয়ে বিদ্রোহী সৈনিকদের হাতে ধরা পড়ে নিহত হলেন।

    অভ্যুত্থানকারী সৈনিকরা ট্যাংক ও সাঁজোয়া যান নিয়ে ঢাকার রাজপথে বেরিয়ে আসে। তারা ‘সিপাহি-জনতার বিপ্লব জিন্দাবাদ’, ‘সিপাহি-জনতা ভাই ভাই’, ‘বাংলাদেশ জিন্দাবাদ’ স্লোগান দেয়। জনগণ ফুলের মালা দিয়ে হর্ষধ্বনি তুলে বিপ্লবী সৈনিকদের অভিনন্দন জানাল। অনেকে ট্যাংকের ওপরে চড়ে বসল। এভাবে রচিত হলো সৈনিক ও জনতার মধ্যে জাতীয় স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার প্রত্যয়ে এক অচ্ছেদ্য, সেই দলকে শাসকদল বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে চলেছে।তারেক রহমানকে দেশের বাইরে রেখে ও বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে আটক রেখে ,যে নীল নকশার নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসেছে তা দেশবাসী কখনো মেনে নে নি আর নিবে ও না। তাই দেশ বিদেশে আন্দোলন গড়ে তুলে অনির্বাচিত সরকারের পতন ঘটানো হবে বলে হুঁশিয়ারী দেন উপস্হিত বক্তারা।

    Print Friendly, PDF & Email

    আরও পড়ুন