১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
লেবানন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত সিঙ্গাইরে দেয়ালে অঙ্কিত বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতি কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলনের আজ শুভ জন্মদিন বিএনপির ৪৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে মালয়েশিয়ায় ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত যে কারণে হত্যার শিকার শিশু আল-আমীন, রহস্য উদঘাটন সিঙ্গাইর থানার ওসির পিতার মাগফিরাত কামনায় দোয়ার মাহফিল কানাডা প্রবাসী প্রয়াত জয়নুল আবেদীন স্বরণে দোয়ার মাহফিল তিনদিন পর সিঙ্গাইরে নিখোঁজ শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার মজিবুর রহমান মোল্যার মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিল মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে সিঙ্গাইরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভা

তিনদিন পর সিঙ্গাইরে নিখোঁজ শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার

মোবারক হোসেন:

মোবারক হোসেন:

মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে নিখোঁজের তিনদিন পর আল-আমীন (৭) নামে এক শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার হয়েছে। স্বজনদের কাছ থেকে খবর পেয়ে মঙ্গলবার (৩১ আগষ্ট) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে উপজেলার বলধারা ইউনিয়নের বেরুন্ডি গ্রামের একটি বাঁশঝাড় থেকে শিশুটির লাশ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। শিশু আল-আমীন একই ইউনিয়নের বড়বাঁকা গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে। সে গত ২৮ আগষ্ট শনিবার থেকে নিখোঁজ ছিল। নিখোঁজের পর একটি অপরাধীচক্র ৩০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে আসছিল। লাশ উদ্ধারের পর নিহত আল-আমীনের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। এ ঘটনায় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

স্বজন ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার (২৮ আগষ্ট) সকাল ৯ টার দিকে নিজ বাড়ি থেকে আল-আমীন বাইসাইকেল নিয়ে সড়কে বের হয়ে নিখোঁজ হন। বহু খোজাখুজির পর সন্ধান না পেয়ে রবিবার (২৯ আগষ্ট) থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তার পিতা শহিদুল ইসলাম। খোজাখুজির এক পর্যায়ে মঙ্গলবার সকালে বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দুরে একটি বাঁশঝাড়ে গর্তের ভিতর শিশু আল-আমীনের বস্তাবন্দি লাশ দেখতে পান স্বজনরা। পরে বিষয়টি থানা পুলিশকে জানানো হয়। খবর পেয়ে সাড়ে ১১ টার দিকে নিহত আল-আমীনের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ।

থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শেখ মো: আবু হানিফ বলেন, সোমবার (৩০ আগষ্ট) রাত সাড়ে ৯ টার দিকে একটি অপরাধীচক্র সাভারের হেমায়েতপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় একটি খাবার হোটেলের কর্মচারির মোবাইল ফোন থেকে নিখোঁজ আল-আমীনের পিতা শহিদুল ইসলামের ব্যবহৃত মুঠোফোনে কল করে ৩০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। ওই ফোন কলের সূত্র ধরে মঙ্গলবার দুপুরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হোটেল কর্মচারি আল-আমীন (৪৫) ও ফুজাইল ইসলাম রনিকে (২৩) আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে শর্তসাপেক্ষে এদিন রাত ১০ টার দিকে হোটেল মালিকের জিম্মায় তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, একটি অপরাধীচক্র পূর্বপরিকল্পিত ভাবে শিশু আল-আমীনকে হত্যার পর বাঁশঝাড়ে গর্ত করে তার লাশ পুতে রাখে। খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। ঠিক কি কারণে কারা শিশুটিকে হত্যা করেছে তা এই মুহুর্তে বলা সম্ভব নয়। এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। শিঘ্রই শিশু আল-আমীন হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন ও অপরাধীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।

আরও পড়ুন