২০শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
মালয়েশিয়ায় স্বাধীনতার সুবর্ন জয়ন্তী ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা। সিঙ্গাইর টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ শতভাগ পাশ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ বুকিত বিনতাং শাখার আলোচনা সভা তিন বছর পর বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেবার সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করায় দোয়া মাহফিল সিঙ্গাইরের জয়মন্টপে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অটোরিক্সার ইঞ্জিনে চাদর পেঁচিয়ে সিঙ্গাইরে ব্যবসায়ীর মৃত্যু সিঙ্গাইরে চোখ উপড়ানো ডাকাতের লাশ উদ্ধার সিঙ্গাইর সদরে ফ্রি রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কার্যক্রম অনুষ্ঠিত বিজয় দিবস উপলক্ষে সিঙ্গাইরে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প বিজয় দিবসে বীর শহীদদের স্বরণ করল সিঙ্গাইর থানা পুলিশ।
  • প্রচ্ছদ
  • ধর্ষণকারীদের বিরুদ্ধে মিছিল করায় শিক্ষার্থীকে পেটালো ছাত্রলীগ
  • ধর্ষণকারীদের বিরুদ্ধে মিছিল করায় শিক্ষার্থীকে পেটালো ছাত্রলীগ

    জনশক্তি রিপোর্ট:

    দেশ ব্যাপী আলোচিত ধর্ষণের প্রতিবাদ মিছিলে অংশ নেওয়ায় শিক্ষার্থীকে পিটিয়েছে ছাত্রলীগ। মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলায় এক শিক্ষার্থীকে ডেকে নিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে তাকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার বিকেলে জুড়ী উপজেলার নাইট চৌমূহনা এলাকায় এই ঘটনাটি ঘটে।

    জানা যায় সম্প্রতি এমসি কলেজে ছাত্ররীগ নেতাকর্মীর গণধর্ষণসহ সারাদেশের ধর্ষণকারীদের গ্রেফতার ও উপযুক্ত শাস্তির দাবিতে সোমবার জুড়ী বাজারে এক বিক্ষোভ মিছিল করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এই রেশ ধরে জুড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ কয়েকজন নেতাকর্মী মিলে শাহাব উদ্দিন (২৭) নামের ওই শিক্ষার্থীকে বেদড়ক মারধর করে।

    পরে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেন।

    নির্যাতনের শিকার শিক্ষার্থী শাহাব উদ্দিন বলেন জুড়ীতে দেশব্যাপী ধর্ষণের প্রতিবাদে একটি বিক্ষোভ মিছিল হয়। সেটিতে আমিও ছিলাম।

    এই টার্গেট নিয়ে দুপুরে জুড়ী বাজারে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাহাব উদ্দিন সাবেল ও সাধারণ ইকবাল ভূঁইয়া আমার মোটরসাইকেলে উঠে। বলে আমার সাথে কথা আছে। চা খেতে খেতে বলা যাবে। এই বলে তারা আমাকে নাইট চৌমুহনায় নিয়ে যায়। ওখানে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা ১৫-২০ জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী হঠাৎ করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নির্দেশে আমার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। তাদের বেদড়ক পিটুনীতে আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি। পরে স্থানীয়রা ওখান থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। তিনি বলেন একপর্যায়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। পরে আমার মোটরসাইকেলটি থানায় নিয়ে যায়।

    এবিষয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাহাব উদ্দিন সাবেল বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন এরকম কোনো ঘটনা ঘটেনি।

    জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সঞ্জয় চক্রবর্তী বলেন আমরা এরকম কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেবো। বিকেলে চৌমুহনায় একটি মোটরসাইকেল পেয়েছি। মালিকানা যাচাইয়ের জন্য সাইকেলটি থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

    আরও পড়ুন