২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
মালয়েশিয়ায় কোকোর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকীতে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে জুলহাস হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন মালয়েশিয়ায় স্বাধীনতার সুবর্ন জয়ন্তী ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা। সিঙ্গাইর টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ শতভাগ পাশ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ বুকিত বিনতাং শাখার আলোচনা সভা তিন বছর পর বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেবার সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করায় দোয়া মাহফিল সিঙ্গাইরের জয়মন্টপে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অটোরিক্সার ইঞ্জিনে চাদর পেঁচিয়ে সিঙ্গাইরে ব্যবসায়ীর মৃত্যু সিঙ্গাইরে চোখ উপড়ানো ডাকাতের লাশ উদ্ধার সিঙ্গাইর সদরে ফ্রি রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কার্যক্রম অনুষ্ঠিত
  • প্রচ্ছদ
  • জমি নিয়ে বিরোধ: সিঙ্গাইরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ডাকাতির নাটক!
  • জমি নিয়ে বিরোধ: সিঙ্গাইরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ডাকাতির নাটক!

    জনশক্তি রিপোর্ট:

    জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে ডাকাতির নাটক সাজিয়ে জাতীয় জরুরী সেবা নম্বর ৯৯৯ ফোন করে প্রতিপক্ষকে ফাঁসানোর অপচেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমন অভিযোগ উপজেলার ধল্লা ইউনিয়নের আঠালিয়া গ্রামের হাজি মোতালেব হোসেনের বিরুদ্ধে। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও অভিযুক্তদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

    ভুক্তভোগী পরিবার ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার আঠালিয়া মৌজায় আরএস ৭৫০ দাগের ২০ শতাংস জমির মালিকানা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ওই গ্রামের শাহজাহান বেপারী, আলমাছ ও হাসমত আলীর পরিবারের সঙ্গে একই এলাকার হাজী মোতালেবের বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে এলাকায় সালিশি বৈঠক হয়। সালিশি বৈঠকে শাহজাহান আলমাছ ও হাসমত আলীর পক্ষে রায় হয়। কিন্তু হাজী মোতালেব রায় না মেনে জমিটি ভোগদখল করতে থাকেন। সম্প্রতি এলাকাবাসীর সহযোগীতায় জমিটি দখলে নেন শাহজাহান ও তার শরিকরা। এরপর থেকে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল।

    শাহজাহান ও আলমাছ বলেন, বিরোধপূর্ন জমিটি দীর্ঘদিন ধরে জোরপূর্বক ভোগদখল করে আসছিল হাজী মোতালেব ও তার পরিবার। এ নিয়ে সালিশি বৈঠক হয়। সালিশী বৈঠকের রায় অনুযায়ী এলাকাবাসীর সহযোগীতায় সম্প্রতি জমিটি দখলে নিয়ে সেখানে ঘর-বাড়ি তুলি। এমনাবস্থায় আমাদের ফাঁসাতে গত শনিবার (১১ ডিসেম্বর) রাত ৯ টার দিকে নিজেরাই বাড়ি ঘর ও আসবাবপত্র ভাঙচুর করে মিথ্যা ডাকাতের নাটক সাজিয়ে ৯৯৯ ফোন দেয়। পুলিশ এসে দেখেন ঘটনাটি মিথ্যা ও সাজানো নাটক। পরে তাদের শাসিয়ে পুলিশ চলে যায়।

    হাজি মোতালেবের ভাতিজা আব্দুল আজিজ মিয়াসহ গ্রামের অনেকেই বলেন, চিৎকার চেঁচামেচির আওয়াজ শুনে ওই বাড়িতে ছুটে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি নিজেরাই ঘরের আসবাবপত্র ভাঙচুর করছে মোতালেব ও তার পরিবারের লোকজন।

    এ ব্যাপারে মোতালেব হোসেন জমি নিয়ে বিরোধের কথা স্বীকার করে বলেন, শাহজাহান, আলমাছ খান ও তাদের স্বজনরা আমার ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে নগদ দুই লাখ টাকা ও ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার নিয়ে গেছে। কিন্তু মোতালেব হোসেনের ছেলে রিপন মাহমুদের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

    স্খানীয় ইউপি সদস্য ছানোয়ার হোসেন বলেন, জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ডাকাতির নাটক সাজায় মোতালেব। পরে ঘটনাটি ফাঁস হয়ে যায়। এটি অত্যান্ত নিন্দনীয় ও গর্হিত অপরাধ। ভবিষ্যতে কেউ যেন এমন ঘটনা ঘটিয়ে কোনো নিরাপরাধ মানুষকে হয়রানি ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বিভ্রান্ত না করতে পারে সেজন্য অভিযুক্ত পরিবারকে আইনের আওতায় আনা প্রয়োজন।

    ধল্লা পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) আলমগীর হোসেন বলেন, ৯৯৯ থেকে ফোন পেয়ে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। সেখানে গিয়ে ডাকাতি ও লুটপাটের সত্যতা পাওয়া যায়নি। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ডাকাতির নাটক সাজায় মোতালেব ও তার বাড়ির লোকজন। পরে তারা এই ঘটনার জন্য ভুল ও দু:খ প্রকাশ করে। ভুক্তভোগী পরিবার লিখিত অভিযোগ দিলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    আরও পড়ুন