১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
সিঙ্গাইরে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ, পুরে ছাই একটি বাড়িসহ তিন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ইউপি নির্বাচন: দলীয় না নির্দলীয় হবে, এ নিয়ে দ্বিধায় আ.লীগ ৬০ পৌরসভা নির্বাচন: ৪৬টিতে আ.লীগ ও চারটিতে বিএনপির জয় কাউন্সিলরের ভোট গোপন কক্ষে, বাইরে মেয়র প্রার্থীর ভোট আনন্দ মিছিলে হামলা, বিজয়ী কাউন্সিলর খুন দ্বিতীয় ধাপে ৬০টি পৌরসভায় নির্বাচন: বিএনপির তিন প্রার্থীর ভোট বর্জন সাভারে মেয়রপুত্র কাছে লাঞ্ছিত সাংবাদিক মালয়েশিয়া সরকারের ১৩ জানুয়ারি থেকে কড়া বিধিনিষেধের মাঝেও দূতাবাসের পাসপোর্ট বিতরন ওয়ালটন দিঘলিয়া প্রিমিয়ার লিগের ফাইনালে সুপার সিক্সার্স ৫২ পৌরসভায় ধানের শীষের টিকিট পেলেন যারা

প্রেমিকাকে ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুকে প্রচার! প্রেমিক গ্রেপ্তার

জনশক্তি রিপোর্ট:

পাবনার চাটমোহরে এক মাদরাসাছাত্রীকে (১৬) ধর্ষণ করে সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই অভিযোগে রনি মোল্লা (১৯) নামে এক তরুণকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার (৩০ জুন) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের চড়ইকোল বাজার থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। সে ওই গ্রামের রবিউল মোল্লার ছেলে। এর আগে ধর্ষিতার বাবা বাদী হয়ে থানায় পর্ণোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন।

মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, একই এলাকায় বসবাসের সূত্র ধরে বছর খানেক আগে ওই মাদরাসা ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে রনি মোল্লার। সেই সুবাদে গত ২০ জুন শনিবার বাড়িতে কেউ না থাকায় কৌশলে রনি মোল্লা ওই মাদরাসা ছাত্রীকে (প্রেমিকা) তার বাড়িতে ডেকে এনে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হয় এবং মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে। পরবর্তীতে সেই ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ওই মাদরাসাছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে রনি মোল্লা। এরপর ওই ছাত্রী বিয়ের জন্য চাপ দিলে রনি সেই ভিডিও ফেসবুক এবং স্থানীয়দের মোবাইলে ছড়িয়ে দেয়। বিষয়টি জানার পর ওই মাদরাসাছাত্রীর বাবা মঙ্গলবার সকালে থানায় পর্ণোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন। পুলিশ মঙ্গলবার সকালে অভিযান চালিয়ে রনি মোল্লাকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে পাঠায়।

এ ব্যাপারে চাটমোহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, রনি মোল্লা নামের ওই তরুণের বিরুদ্ধে পর্ণোগ্রাফি আইনে মামলা দায়েরের পর অভিযান চালিয়ে তাকে আটকের পর গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তার মোবাইল জব্দ করে এর সত্যতা পাওয়া গেছে। এ ছাড়া ধর্ষণের শিকার ওই মাদরাসাছাত্রীর ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন