১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |
  • প্রচ্ছদ
  • বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের স্থগিত ৯টি কেন্দ্রে আওয়ামিলীগ বিজয়ী
  • বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের স্থগিত ৯টি কেন্দ্রে আওয়ামিলীগ বিজয়ী

    আব্দুল্লাহ মামুন, বরিশাল ঃ বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের স্থগিত ৯টি কেন্দ্রে আওয়ামিলীগ বিজয়ী। স্থগিতকৃত ৯টি কেন্দ্রে পুনঃভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত প্রশাসনের কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে দিয়ে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়।
    ৯টি কেন্দ্রে পুনঃভোটে বিজয়ী কাউন্সিলররা হলেন- ১নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের আমীর বিশ্বাস, ১৪নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের তৌহিদুল ইসলাম ছাবিদ। ১৭নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের গাজী আক্তারুজ্জামান হিরু, ২২নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের আনিছুর রহমান দুলাল, ২৩নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর এনামুল হক বাহার ও ২৪নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের আনিছুর রহমান শরীফ।
    এছাড়া তিনটি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদের দুটিতে বিএনপির প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। এর মধ্যে সংরক্ষিত-৫ (১৩.১৪.১৫) নং ওয়ার্ডে ইসমত আরা লাভলী, সংরক্ষিত-৬ (১৬.১৭.১৮)নং ওয়ার্ডে আ’লীগের গায়েত্রী সরকার পাখি ও সংরক্ষিত-৯ (২৪.২৫.২৬) নং ওয়ার্ডে বিএনপি নেত্রী সেলিনা বেগম পুনরায় নির্বাচিত হয়েছেন।
    এর মধ্যে সাধারণ ১নং ওয়ার্ডে আমির বিশ্বাস ঠেলাগাড়ি প্রতীক নিয়ে মোট ৩ হাজার ১৫৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি’র প্রার্থী শহিদুল হাসান মামুন লাটিম প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৯৯৭। ১৪নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের তৌহিদুল ইসলাম ছাবিদ ঠেলাগাড়ি প্রতীক নিয়ে ২ হাজার ৪৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি স্বতন্ত্র প্রার্থী শাকিল হোসেন পলাশ লাটিম প্রতীক নিয়ে এক হাজার ৫৯৬ ভোট পেয়েছেন।
    এছাড়া ১৭নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের গাজী আক্তারুজ্জামান হিরু ২ হাজার ৪০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি’র প্রার্থী আনোয়ার হোসেন ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে ৪৮০ ভোট পেয়েছেন। ২২নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. আনিছুর রহমান দুলাল ঠেলাগাড়ি প্রতীক নিয়ে ২ হাজার ৪২২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি’র প্রার্থী আ.ন.ম সাইফুল আহসান আজিম ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৬৬৮ ভোট।
    ২৩নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর এনামুল হক বাহার ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে ৩ হাজার ৫৬৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি এমরান চৌধুরী জামাল ঠেলাগাড়ি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ৪৩৩ ভোট। এছাড়া ২৪নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শরীফ আনিছুর রহমান ঠেলাগাড়ি প্রতীক নিয়ে ২ হাজার ৬৭৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর ফিরোজ আহমেদ টিফিন কেরিয়ার প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন এক হাজার ৮০৮ ভোট।
    এছাড়া সংরক্ষিত-৫নং ওয়ার্ডের নারী কাউন্সিলর প্রার্থী ইসমত আরা লাভলী ৫ হাজার ৮৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর কামরুন্নাহার রোজী পেয়েছেন ৪ হাজার ৬৬৪ ভোট। সংরক্ষিত-৬নং ওয়ার্ডে আ’লীগের প্রার্থী গায়েত্রী সরকার পাখি ২ হাজার ২৪৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি মজিদা বোরহান পেয়েছেন ২ হাজার ১১ ভোট। এছাড়া সংরক্ষিত-৯নং ওয়ার্ডে বিএনপি’র সেলিনা বেগম ৭ হাজার ৭৪৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডালিম বেগম পেয়েছেন ৭ হাজার ৬৭৫ ভোট।
    এর আগে শনিবার সকালে বৃষ্টি বিঘিœত আবহাওয়ার মধ্যে ১, ১৪, ১৭, ২২, ২৩, ২৪ ও ২৫ নং ওয়ার্ডের ৯টি কেন্দ্রে পুনঃভোট গ্রহন শুরু হয়। এর মধ্যে ১৭ ও ২২ ওয়ার্ডের দুটি কেন্দ্র হলেও বাকি ওয়ার্ড গুলোর ১টি করে কেন্দ্রে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়। তবে ২৫নং ওয়ার্ড কেন্দ্রে সাধারণ কাউন্সিলর পদে এম জাকির হোসেন ৩০ জুলাইর ভোটে বিপুল ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় ওই কেন্দ্রটিতে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ভোট হয়নি। শুধুমাত্র সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ভোট হয়েছে ওই ওয়ার্ডটিতে। তবে সকালে বৃষ্টির কারনে ৯টি কেন্দ্রিই ভোটারদের উপস্থিত কম ছিলো। আবহাওয়া পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে কেন্দ্র গুলোতে ভোটার সংখ্যাও বৃদ্ধি পায়। পুনঃভোট গ্রহন অনুষ্ঠানে ভোটারদের সর্বাধিক উপস্থিতি ছিলো ১৪নং ওয়ার্ডের ফারিয়া কমিউনিটি সেন্টার কেন্দ্রে। অবশ্য ৯টি কেন্দ্রের কোনটিতেই ভোটারদের শতভাগ উপস্থিতি ছিলো না বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. মুজিবুর রহমান।
    তিনি জানান, ৯টি কেন্দ্রে পুনঃভোট গ্রহনের লক্ষ্যে শুক্রবার রাত থেকেই র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি, এপিবিএন ও আনসার সদস্যরা নিরাপত্তা বলয়ে ঘিরে ছিলো ভোট কেন্দ্র সহ নির্বাচনী এলাকা। ভোট গ্রহনের শুরু থেকে ভোট গননার শেষ সময় পর্যন্ত প্রতিটি কেন্দ্রে ১ জন করে মোট ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মনিটরিং এর দায়িত্বে ছিলেন। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ন নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য ছিলো দুই প্লাটুন বিজিবি সদস্য। কেন্দ্রের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দায়িত্বে পুলিশের একজন পরিদর্শকের নেতৃত্বে ছিলো পুলিশ ও আনসার বাহিনীর ২৮ জন সদস্য। এছাড়া পুলিশের আরো দুটি স্ট্রাইকিং ফোর্স ছিলো। তাই আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নিরাপত্তার কারনে ভোট গ্রহনকে কেন্দ্র করে কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।
    তবে ১৭নং ওয়ার্ডের সিটি কলেজ কেন্দ্রে ভোট চলাকালিন অবৈধভাবে অনুপ্রবেশকারী মো. ইকবাল হোসেন নামের এক ছাত্রলীগ কর্মীকে আটক করে পুলিশ। পরে তাকে কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট দীপক কুমার দাস এর মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং মুচলেকা দিয়ে ছাড়িয়ে নেন মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক নিজামুল ইসলাম নিজাম। জরিমানা দেয়া ইকবাল হোসেন মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার চাঁনপুরের নয়নপুর এলাকার মো. সবুজ মোল্লার ছেলে এবং উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মী বলে জানাগেছে।

    আরও পড়ুন

    [X]