২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
লকডাউন বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে সিঙ্গাইর উপজেলা প্রশাসন দায়িত্ব গ্রহণ করলেন মানিকগঞ্জ নবাগত জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফ করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ডেল্টা প্লাস’নিয়ে কেন এত শঙ্কা গোটা বিশ্বের? রাশিয়াকে উড়িয়ে নকআউট পর্ব নিশ্চিত করলো ডেনমার্ক সিঙ্গাইরে শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ, নগদ এজেন্ট মালিককে অর্থদণ্ড প্রথম দিনে নাম নিবন্ধন করেছে ১৯৪জন পাসপোর্ট নাম্বার বিহীন লেবানন প্রবাসী সিঙ্গাইরে ট্রাকচাঁপায় মটরসাইকেল চালকের মৃত্যু একদিন নয়, প্রতিদিন হোক বাবা দিবস ব্র্যাকের মানবিধকার ও আইন সচেতনতা বিষয়ক মতনিময় সভা পরীমনির বাসা যেন মদের বার, প্রতিদিনই বসে আসর

বাংলাদেশে করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়াল

জনশক্তি অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্তের সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়াল। গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়ার তথ্য জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আজ ২ জুলাই সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্তের সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়িয়ে গেল। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে ৪ হাজার ১৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এক দিনে এই সংখ্যা সর্বোচ্চ। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে আজ বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানানো হয়।

দেশে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৫৩ হাজার ২৭৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। করোনায় মোট মারা গেছে ১ হাজার ৯২৬ জন।

আজকের ব্রিফিংয়ে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে ৪ হাজার ৩৩৪ জন। মোট সুস্থ হয়েছে ৬৬ হাজার ৪৪২ জন। গতকাল বুধবার দেশে করোনায় সংক্রমিত ৩ হাজার ৭৭৫ জন শনাক্ত হওয়ার কথা জানানো হয়েছিল। মারা গিয়েছিলেন ৪১ জন।

ব্রিফিংয়ের তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮ হাজার ৩৬২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর আগের দিন ১৭ হাজার ৮৭৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। এখন পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৮ লাখ ২ হাজার ৬৯৭টি নমুনা। দেশে ৭০টি ল্যাবে (পরীক্ষাগার) করোনা পরীক্ষার ফল পাওয়া গেছে। গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্তের ঘোষণা আসে। ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

করোনার ঝুঁকি এড়াতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে সবাইকে অনুরোধ করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।

অনলাইন ব্রিফিংয়ে নাসিমা সুলতানা বলেন, যে স্থানে নমুনা সংগ্রহ করা হবে, সেখানে রশিদের মাধ্যমে ফি নেওয়া হবে। এরপর তা সরকারি কোষাগারে জমা হবে। দরিদ্র রোগীদের ক্ষেত্রে ফি মওকুফ থাকবে।
নাসিমা সুলতানা আরও বলেন, অনেকে সুস্থ হওয়ার পরে কাজে যোগ দিতে অসুবিধা হচ্ছে। লক্ষণ বা উপসর্গ-মুক্ত হওয়ার পর আরও ১৪ দিন পর কাজে যোগ দিতে পারবেন। এ বিষয়টি সবাই বিবেচনা করবেন। এর জন্য আর কোনো পরীক্ষার দরকার নেই।

আরও পড়ুন