২৯শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
পুলিশ বাহিনীকে দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত করার পদক্ষেপ সিঙ্গাইরে সাত মামলার পলাতক আসামি ডাকাত রিয়াজুল গ্রেফতার এক দিনে ৪৭ মামলার রায়, হাসিমুখে বাড়ি ফিরলেন ৪৬ দম্পতি নোয়াখালী জেলা রোভারের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ পরশ ও যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের ভার্চুয়াল সভা পৌর নির্বাচন ও দলীয় কাউন্সিলকে সামনে রেখে সিঙ্গাইর উপজেলা আ.লীগের বর্ধিত সভা গৃহকর্মীকে ধর্ষণের পর সাততলা থেকে ফেলে দেওয়া হয় ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ: মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ঢাকা মহানগর উত্তর আ.লীগের অর্থ সম্পাদক হলেন শিল্পপতি সালাম চৌধুরী টিউশন ফি ছাড়া অন্য খাতে অর্থ নিতে পারবে না স্কুল-কলেজ
  • প্রচ্ছদ
  • ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের ঘোষণা




  • ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের ঘোষণা

    জনশক্তি ডেস্ক: পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। আগামী ৭ জুন তিনি কনজারভেটিভ পার্টির দলীয় প্রধানের পদ থেকে পদত্যাগ করবেন বলে জানিয়েছেন। থেরেসা জানিয়েছেন, নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের পথ সুগম করতেই তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ী দলীয় প্রধানের পদে না থাকলে প্রধানমন্ত্রী পদেও থাকতে পারবেন না থেরেসা।

    শুক্রবার ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ১০ নং ডাউনিং স্ট্রিটে আবেগঘন এক প্রেস ব্রিফিংয়ে থেরেসা বলেছেন, ২০১৬ সালের গণভোটের ফলাফলকে সম্মান জানাতে আমি আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি।

    থেরেসা আরো বলেন, ব্রেক্সিট বাস্তবায়ন না করতে না পারার বিষয়টি হতে তার জন্য গভীর অনুশোচনার। তবে একজন নতুন প্রধানমন্ত্রী দেশের সর্বোচ্চ স্বার্থ রক্ষা করবেন বলে তার বিশ্বাস।

    শুক্রবার থেরেসা বলেন, ব্রিটেনের দ্বিতীয় নারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করা ছিলো আমার জন্য অত্যন্ত গর্বের। এসময় তার কণ্ঠ ধরে আসে। কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হওয়াট ছিলো আমার জীবনের সবচেয়ে সম্মানজনক ঘটনা। ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে গত কয়েক মাসের দেনদরবারের পর দলীয় এমপিদের বিরোধীতার মুখে তিনি পদত্যাগের ঘোষণা দিলেন। ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে তার পরিকল্পনা অনুমোদন পায়নি মন্ত্রীসভা ও পার্লামেন্টে।

    ২০১৬ সালে ব্রিটেনের ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়া(ব্রেক্সিট) বিষয়ক গণভোটে ব্রেক্সিটের পক্ষে রায় আসার পর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরানের পদত্যাগের পর থেরেসা কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান নির্বাচিত হন এবং মার্গারেট থ্যাচারের পর দ্বিতীয় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। ওই বছর ১৩ জুলাই তিনি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছিলেন। সূত্র: অনালাইন

    আরও পড়ুন