১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

ব্রিটেনেও চলছে মাস্ক পরা নিয়ে বিতর্ক

জনশক্তি ডেস্ক

বৈশ্বিক নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়ানো রোধ করতে ফেইস মাস্ক পরা উচিৎ কি উচিৎ নয়, এটা নিয়ে নানা দেশে বিতর্কের শেষ নেই। ব্রিটেনেও চলছে এই বিতর্ক। বিশেষ করে যখন ব্রিটেনে এখন লকডাউন শিথিল করে সবকিছু খুলে দেয়া হচ্ছে। তখন ব্রিটেনে এ নিয়ে চলছে বাদানুবাদ। অনেকেই চান না মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক হোক।

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, ইংল্যান্ডে দোকানের ভেতরে সবার মাস্ক পরা উচিৎ। তবে এটি পরা বাধ্যতামূলক করার জন্য কিছু করতে হবে কীনা, সেটা নিয়ে সরকার আগামী কয়েকদিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেবে।

ব্রিটেনের বই বিক্রির বড় চেইন স্টোর ওয়াটারস্টোনসের প্রধান বলেছেন, মাস্ক পরা বাধ্যাতামূলক করা হলে সেটি হবে যুক্তিসঙ্গত একটি পদক্ষেপ। তবে কেউ এটা মানছে কীনা সেটা দেখার দায়িত্ব দোকান কর্মচারিদের ওপর বর্তানো উচিৎ হবে না।

মাস্ক ব্যবহার সম্পর্কে সরকারের অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ব্রিটিশ এমপিরা। দেশটির চিকিৎসকরাও বলছেন – করোনার ভয়াল থাবা থেকে রেহাই পেতে মাস্কের বিকল্প নেই, তবে সচেতনতা আরো বাড়াতে হবে।

বৃটেনের লিস্টার হসপিটালের চিকিৎসক ডা. সালমা হাসান জানান, মাস্ক পরা এই মুহূর্তে জরুরি, যেহেতু আমাদের লকডাউন শিথিল করতে শুরু করেছে। ইতোমেধ্যে বিভিন্ন ডেটাতে দেখতে পাচ্ছি মাস্কের একটা ভূমিকা রয়েছে। এটা সংক্রামণ কমাতে সহায়তা করে।

ওয়েলসের সরকার বলেছে, ২৭শে জুলাই হতে সেখানে তিন স্তরের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হবে।

আরও পড়ুন