৩১শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
শয়তান যেভাবে মুসলিম ভ্রাতৃত্ব বিনষ্ট করে নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর: হাজী সেলিমের ছেলে এরফান গ্রেপ্তার সালাম নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য: ঢাবি অধ্যাপকের বিরুদ্ধে মামলা ঢাকা বিভাগের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক হলেন সিঙ্গাইরের কৃতি সন্তান রেজাউল করিম তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদের সুস্থতা কামনায় রাজশাহীতে দোয়া মাহফিল সম্পত্তির লোভে মায়ের লাশ ৫ টুকরো করল ছেলে! কারাফটকে বিয়ে, তারপর মিলবে সাজাপ্রাপ্ত ধর্ষকের জামিন: হাইকোর্ট সিঙ্গাইরে যাত্রীবাহী বাস খাদে, চালকসহ তিনজন নিহত লেবাননে ফের সায়াদ হারিরি প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত ডিআইজি হাবিবুর রহমানের জায়গায় হলো বেদে সম্প্রদায়ের কবরস্থান
  • প্রচ্ছদ
  • বয়স পঁচিশ,চতুর্থ স্বামীকে ছেড়ে পঞ্চম স্বামীর সঙ্গে ঘর সংসার




  • বয়স পঁচিশ,চতুর্থ স্বামীকে ছেড়ে পঞ্চম স্বামীর সঙ্গে ঘর সংসার

    বয়স পঁচিশ এর কোঠায়। এর মধ্যেই চতুর্থ স্বামীকে তালাক না দিয়ে পঞ্চম স্বামীর সঙ্গে সংসার পেতে এলাকায় ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে কলি হাওলাদার নামের এক নারী। বাড়ি পটুয়াখালী সদর উপজেলার ছোট বিঘাই ইউনিয়নে। কলির চতুর্থ স্বামীর নাম মো. মামুন মিয়া। তাঁর বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল থানার দিগড় ইউনিয়নের তেগুরি গ্রামে। মামুনের বাবা মৃত ইমান আলী। মামুন প্রবাসী বাংলাদেশি। তাঁর কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়ে আরেক ছেলের সঙ্গে সংসার শুরু করায় ঘটনার প্রতিকার চেয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মামুন বিভিন্ন ছবি ও তথ্য দিয়ে বিচার দাবি করেছে কলির।

    প্রায় সাড়ে তিন বছর আগে কলির সাথে মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে মামুনের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের তিন মাস পর মামুন সৌদি আরব চলে যায়। এরপর প্রতিমাসে স্ত্রীর ভরণপোষণের জন্য টাকা পাঠাত। যেহেতু মামুনের স্ত্রী বাবার বাড়িতে থাকত এ কারণে ছোট বিঘাইতে জমি কেনার জন্য মামুন স্ত্রী কলির কাছে তিন লাখ টাকা এবং ওই জমির মাটি কাটার জন্য আরো ৭৫ হাজার টাকা পাঠায়।

    বিয়ের পর মামুনের বাড়িতে কলিকে রাখতে চাইলেও সে রাজি হয়নি। এ কারণে কলির বাবার বাড়িতে বসবাস করছিল। এ পর্যন্ত তাঁর (কলি) দৈনন্দিন খরচ এবং বাড়ি করা বাবদ প্রায় ৫ লাখ টাকা কলি নিয়েছে মামুনের কাছ থেকে। সম্প্রতি মামুন বাড়ি করার জন্য জমি ও মাটি কাটার ছবির ভিডিওচিত্র দেখতে চাইলে কলি টালবাহানা শুরু করে। এরপর মামুন জানতে পারে জুন মাসের শুরুর দিকে মোবাইলফোনে প্রেমের মাধ্যমে কলি পিরোজপুর জেলার ইন্দুরকানি এলাকার রাজু নামে এক ছেলেকে বিয়ে করে। বর্তমানে রাজুকে নিয়ে কলি তাঁর বাবার বাড়িতে অবস্থান করছে।

    মামুন অভিযোগ করেন, আমার স্ত্রী থাকা অবস্থায় আমাকে তালাক না দিয়ে এবং আমার কাছ থেকে নিয়মিত খরচের টাকাসহ অনেক টাকা হাতিয়ে নিয়ে অন্য একটি ছেলে বিয়ে করেছে। আমরা সঙ্গে বিয়ে হওয়ার আগেও ওর এলাকায় একটি এবং ঢাকায় দুটি ছেলের সঙ্গে ওর বিয়ে হয়, যা আমার কাছে গোপন রেখেছিল। প্রতারক এ নারীর বিচার, আমার টাকা ফেরতসহ শাস্তির দাবি করছি।

    মামুনের এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে ছোট বিঘাই এলাকায় সরেজমিনে কলি হাওলাদারে বাড়িতে গেলে কলি আবারও বিয়ে করার কথা স্বীকার করেন। কলি দাবি করেন, আমি প্রবাসী স্বামী মামুনকে তালাক দিয়েছি। মামুন খরচের টাকা পাঠালে আমি কি করব। এ সময় কলির কাছে তালাকের কপি চাইলেও তিনি তা দেখাতে পারেননি। মামুনের সাথে বিয়ের আগে আরো একাধিক বিয়ে করেছেন- সে ব্যাপারেও কোনো উত্তর দেননি কলি।

    কলির বাবা আব্দুর রব হাওলাদারের মেয়ের আবারও বিয়ে দেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, মামুন তাঁর মেয়ের খোঁজখবর নেয় না। তাই অনত্র বিয়ে দিয়েছেন। তবে সৌদিপ্রবাসী মামুন প্রতিমাসে যে তাঁর মেয়েকে এখনও টাকা পাঠায় এটি তাঁর অজানা বলে তিনি দাবি করেন তিনি। মামুনের আগে তাঁর মেয়ের আরো তিনটি বিয়ে হয়েছিল কি-না এ প্রশ্নের জবাবে তিনিও কোনো উত্তর দেননি। স্থানীয় একাধিক ব্যক্তির সাথে কথা বলে জানা গেছে, কলির এমন কর্মকাণ্ডে তারা বিব্রত। এতে এলাকার সুনাম ক্ষুণ্ন হচ্ছে।

    Print Friendly, PDF & Email

    আরও পড়ুন