১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
লেবানন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত সিঙ্গাইরে দেয়ালে অঙ্কিত বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতি কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলনের আজ শুভ জন্মদিন বিএনপির ৪৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে মালয়েশিয়ায় ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত যে কারণে হত্যার শিকার শিশু আল-আমীন, রহস্য উদঘাটন সিঙ্গাইর থানার ওসির পিতার মাগফিরাত কামনায় দোয়ার মাহফিল কানাডা প্রবাসী প্রয়াত জয়নুল আবেদীন স্বরণে দোয়ার মাহফিল তিনদিন পর সিঙ্গাইরে নিখোঁজ শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার মজিবুর রহমান মোল্যার মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিল মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে সিঙ্গাইরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভা

ভোলার চরফ্যাসনের শশীভূষণ থানায় ঘুষ না পেয়ে তরিঘরি করে মামলার চুড়ান্ত প্রতিবেদন দিলেন পুলিশ তদন্ত কর্মকর্তা

এম. মাহাবুবুর রহমান নাজমুল, জেলা প্রতিনিধি, ভোলা।

ভোলার চরফ্যাসনের শশীভূষণ থানা পুলিশকে ঘুষ  দিতে না পারায় যৌতুকের জন্য মারধরের অভিযোগে শশীভূষণ থানায় দায়েকৃত মামলা ‘মিথ্যা’আখ্যা দিয়ে চুড়ান্ত প্রতিবেদন অনুমোদনের জন্য পুলিশ সুপারের কাছে প্রেরণ করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা। শশীভূষণ থানার ওসি তদন্ত ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তার আবুল হাসান খানের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তুলেছেন মামলার বাদি ও ভিক্টিম মোসা. সারমিন। বাদি সারমিন শশীভূষণ থানার পশ্চিম এওয়াজপুর গ্রামের মো. মঞ্জুর স্ত্রী।

বাদি সারমিন অভিযোগ করেন, ৪ বছর আগে পশ্চিম এওয়াজপুর গ্রামের মুনাফ জমাদারের ছেলে মঞ্জুর সাথে সারমিনের বিয়ে হয়। তাদের একটি মেয়ে সন্তান আছে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকে স্বামী-শ্বশুড় পরিবার সারমিনের পরিবারের কাছে ব্যবসা করার জন্য ২ লাখ টাকা চেয়ে আসছে। এই টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় সংসারে অশান্তি শুরু হয়। নিত্য অশান্তির ধারাবাহিকতায় গত ১২ অক্টোবর রাতে স্বামীসহ পরিবারের সদস্যরা সারমিনকে মারধর করে। পরদিন খবর পেয়ে বাবা নুর মোহাম্মদ হাওলাদার মেয়েকে উদ্ধার করে চরফ্যাসন হাসপাতালে ভর্তি করেন। এই ঘটনায় সারমিন বাদি হয়ে ২৯ অক্টোবর স্বামীসহ ৪ জনকে আসামী করে শশীভূষণ থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ মামলার প্রধান আসামী মঞ্জুকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করেন। দেড় মাস জেলে থাকার পর মঞ্জু জামিনে মক্তি পেয়ে মামলা তুলে নিতে সারমিনকে হুমকী ধামকী দিতে শুরু করেন।

এদিকে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও শশীভূষণ থানার ওসি তদন্ত আবুল হাসান খান মামলার চার্জশীট প্রদানের জন্য বাদির কাছে ২০ হাজার টাকা দাবী করেন। অসহায় বাদি ওই টাকা দিতে না পারায় আসামীদের সাথে অনৈতিক লেনদেনে প্রভাবিত হয়ে তদন্ত কর্মকর্তা মামলাটি ‘মিথ্যা’আখ্যা দিয়ে চুড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিলের অনুমোতি চেয়ে জেলা পুলিশ সুপারের কাছে প্রেরন করেছেন। গত ৭ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় মামলার অগ্রগতি জানতে থানায় গিয়ে বাদি জানতে পান, মামলাটি ম্যিথা প্রমাণিত হওয়ায় চুড়ান্ত প্রতিবেদনের জন্য অনুমতি চেয়ে জেলা পুলিশ সুপারের কাছে পাঠানো হয়েছে।

অভিযোগ প্রসঙ্গে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও ওসি তদন্ত আবুল হাসান খান জানান, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিরোধ ছিল। তদন্তে বিরোধ থাকার বিষয় প্রমাণিত হলেও মারধরের বিষয় প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তাই মামলাটি চুড়ান্ত প্রতিবেদনের জন্য অনুমতি চাওয়া হয়েছে। তবে বাদির দাবী অনুযায়ী টাকা চাওয়ার অভিযোগ তিনি অস্বীকার করেছেন। শশীভূষণ থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেছেন, প্রাথমিক সত্যতার ভিত্তিতে মামলাটি এজাহার নেয়া হয়েছিল। গ্রেফতার করে আসামীকেও জেলে পাঠানো হয়েছে। ফলে মামলাটি মিথ্যা প্রমাণের কোন সুযোগ নেই। বাদিনীর অভিযোগ খতিয়ে দেখা হবে।

আরও পড়ুন