২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
লেবাননে ফের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প, প্রবাসীদের উপচেপড়া ভির লেবানন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত সিঙ্গাইরে দেয়ালে অঙ্কিত বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতি কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলনের আজ শুভ জন্মদিন বিএনপির ৪৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে মালয়েশিয়ায় ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত যে কারণে হত্যার শিকার শিশু আল-আমীন, রহস্য উদঘাটন সিঙ্গাইর থানার ওসির পিতার মাগফিরাত কামনায় দোয়ার মাহফিল কানাডা প্রবাসী প্রয়াত জয়নুল আবেদীন স্বরণে দোয়ার মাহফিল তিনদিন পর সিঙ্গাইরে নিখোঁজ শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার মজিবুর রহমান মোল্যার মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিল

ভোলায় সংঘর্ষে নিহতদের পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ প্রদান

এম. মাহাবুবুর রহমান নাজমুল, জেলা প্রতিনিধি, ভোলা।।

ফেসবুকে আল্লাহ ও নবীকে নিয়ে কটূক্তির ঘটনায় ভোলার বোরহানউদ্দিনে পুলিশ ও জনতার সংঘর্ষে নিহত ৪ জনের পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে মোট ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়েছে।

শনিবার দুপুরে ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল নিহতদের পরিবারের কাছে নগদ অর্থ তুলে দেন।

এর আগে বোরহানউদ্দিন উপজেলায় নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে সংসদ সদস্য মুকুল জানান, ভোলার অভিভাবক সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল বলেন, ফেসবুকে পোস্ট দেয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় যারা জড়িত তাদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। ইতোমধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে গঠিত তদন্ত টিমের তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়া হয়েছে।

পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে গঠিত তদন্ত টিমের রিপোর্ট অচিরেই পাওয়া যাবে। পুরো ঘটনাটিকে নিয়ে গভীর পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। যারা দোষী সাব্যস্ত হবে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। এ সময় দোষীদের খুঁজে বের করার ক্ষেত্রে সাংবাদ মাধ্যমের সহায়তাও কামনা করেন তিনি।

ভোলা সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের ৬ দফা দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাস দিয়ে তিনি বলেন, নিহতদের পরিবারকে মানবিক সহায়তা করা হয়েছে। আহতদেরকে চিকিৎসা সাহায়তা দেয়াসহ সবগুলো দাবিই পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হবে।

উল্লেখ্য, বোরহানউদ্দিনের বাসিন্দা বিপ্লব চন্দ্র শুভ নামক ফেসবুক আইডি থেকে আল্লাহ ও নবীকে নিয়ে কটূক্তি করাকে কেন্দ্র করে গত ২০ অক্টোবর সমাবেশের ডাক দেয় সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ। পরে সমাবেশকে কেন্দ্র করে জনতা ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এক পর্যায়ে পুলিশ ফাঁকা গুলি চালালে চারজন নিহত হয়। এ ছাড়া ১০ পুলিশসহ দেড় শতাধিক লোক আহত হয়।

ওই ঘটনার পর থেকে ৬ দফা দাবি জানিয়েছে আসছে সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ।

আরও পড়ুন