১৪ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

মহানবীর (সা.) এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে সিঙ্গাইরে ফ্রান্সবিরোধী বিক্ষোভ-সমাবেশ

মোবারক হোসেন:

ফ্রান্সে মহানবীর (সা.) ব্যাঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (৪ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলা ইমাম পরিষদের উদ্যোগে এ মিছিল সমাবেশ হয়। এতে স্থানীয় আলেম সমাজ ও সর্বস্তরের ধর্মপ্রাণ মুসলমান অংশগ্রহণ করে। বিক্ষোভ মিছিল থেকে ফ্রান্সের পণ্য বর্জনসহ বিশ্ব মুসলিম উন্মাহকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

এদিন সকাল থেকে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে সিঙ্গাইর পৌর বাজার চৌরাস্তার মৌড়ে মিলিত হন। এ সময় বিশ্বনবী হযরত মোহাম্মদ (সাঃ)-এর ব্যাঙ্গচিত্র এঁকে অবমাননা এবং ইসলাম ধর্মের অনুভূতিতে আঘাতের প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠে পুরো উপজেলা শহর। সাড়ে ১০টার দিকে সেখান থেকে বিক্ষোভ মিছিল বেড় হয়। মিছিলটি পৌর এলাকার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে একই স্থানে এসে শেষ হয়। পরে সেখানে সিঙ্গাইর উপজেলা ইমাম পরিষদের সভাপতি হাফেজ জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে মুফতি মাসউদুর রহমান আইয়ুবীর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলার শীর্ষ আলেম মুফতি আব্দুল বাতেন। তিনি ফ্রান্সের তৈরি সকল পণ্য বর্জন করার আহ্বান জানান। এছাড়া বিক্ষোভ সমাবেশে স্বাগত বক্তব্য দেন মাওলানা আশরাফুল ইসলাম।

এদিকে বিক্ষোভ মিছিল শেষে বেলা ১২ টার দিকে পৌর সদরে অবস্থিত দারুল হিকমাহ ওয়াল ইরফান মাদ্রাসা মসজিদে একই দাবীতে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, হেফাজতে ইসলামী বাংলাদেশের যু্গ্মমাহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ আল হাবীব।

আল্লামা জুনায়েদ আল হাবীব তার বক্তব্যে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো এবং সেখানকার পত্রিকা শার্লী এবদো কর্তৃক বিশ্বনবীর (সাঃ) ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ করে অবমাননার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জ্ঞাপন করেন। এছাড়া তিনি বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নিন্দা বিল পাস এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে ফ্রান্সের সকল পণ্য নিষিদ্ধ করতে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। একইসঙ্গে ‘সালাম’ ও ‘আল্লাহ হাফেজ’ নিয়ে কটুক্তি করায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক জিয়াউর রহমানকে বহিষ্কার এবং ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত ও উস্কানির অভিযোগে একাত্তর টেলিভিশনকে বন্ধের আহ্বান জানিয়ে সকল মুসলমানদের প্রতি মহানবীর জীবনাদর্শ মেনে চলার আহবান জানান। পরে মুসলিম বিশ্বের মঙ্গল কামানায় বিশেষ দোয়া-মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় উপজেলার শীর্ষ আলেম শাইখুল হাদিস সাঈদ নুর, মুফতি আব্দুল বাতেন ও মাওলানা দ্বীন মোহাম্মদ, মাওলানা আব্দুল ওয়াহাব, মাওলানা ফজলুল করিম, দাশেরহাটি মাদ্রাসার বড় হুজুর মাওলানা তাজুল ইসলাম, বাহদুরপুর পীর সাহেবের খলিফা মাওলানা নুরুল ইসলাম, মানিকনগর মাহমুদিয়া আলিম মাদ্রাসার সিনিয়র শিক্ষক মুফতি শাহজাহান, উপজেলা ইমাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মুফতি মিজানুর রহমান, চারিগ্রাম সাফি জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আনোয়ার হোসেন কাসেমী, লক্ষ্মীপুর জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আনছার আলী, রায়দক্ষিন মাদ্রাসা মসজিদের খতিব মাওলানা ফরিদ উদ্দিন, উপজেলা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব মোহাম্মদ উল্লাহ, ফোর্ডনগর মসজিদের খতিব মঞ্জুরুল ইসলাম, বিনোদপুর মাদ্রাসা জামে মসজিদের খতিব মুফতি ফয়জুল্লাহ, বিনোদপুর মধ্যপাড়া জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মোশারফ হোসেন, বায়রা জজবাড়ি জামে মসজিদের খতিব মাওলানা শহিদুল্লাহ, আঙ্গারিয়া জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা গিয়াস উদ্দিন, চান্দহর বাজার জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা আজিমুদ্দিন, বায়রা বাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আমিনুল ইসলাম, হাতনি জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আশরাফুল ইসলাম, সিঙ্গাইর বাজার জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুল খালেক হাবিবী, ধল্লা বাজার জামে মসজিদের খতিব তোফাজ্জল হোসেন, গোবিন্দল ধাইরা পাড়া জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আতাউর রহমান শেরপুরী, দক্ষিন চারিগ্রাম জামে মসজিদের খতিব মাওলানা লোকমান হোসাইন, ভুমদক্ষিন হাসপাতাল জামে মসজিদের খতিব আব্দুল্লাহ আল-মামুন ও বড়বাকা জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আব্দুল কাইয়ুমসহ উপজেলার অসংখ্য আলেম ওলামা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন