৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |
  • প্রচ্ছদ
  • মানিকগঞ্জ-২ আসনের বিএনপি প্রার্থী শান্ত’র গাড়ি বহরে আ.লীগের হামলা
  • মানিকগঞ্জ-২ আসনের বিএনপি প্রার্থী শান্ত’র গাড়ি বহরে আ.লীগের হামলা

    জনশক্তি রিপোর্ট, ঢাকা:
    মানিকগঞ্জ-২ সিংগাইর-হরিরামপুর) আসনের বিএনপি প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মঈনুল ইসলাম খান শান্ত’র গাড়ি বহরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় দুটি প্রাইভেটকারসহ ৮টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়। শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। হামলায় বিএনপির অন্তত ২১ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে গুরুতর ৩ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।
    স্থানীয় বিএনপি নেতা ও প্রতেক্ষদর্শীরা জানান, নির্বাচনী প্রচার কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মঈনুল ইসলাম খান শান্ত’র লোকজনকে প্রচার কাজে বাঁধা, নেতাকর্মীদের উপর হামলা ও মাইক ভাঙচুর ও পোষ্টার ছিরে ফেলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। শুক্রবার বিকাল সোয় ৫ টার দিকে বিষয়টি জানাতে দলীয় নেতাকর্মী নিয়ে মঈনুল ইসলাম খান শান্ত সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তা সিঙ্গাইর উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহেলা রহমতুল্লাহর কার্যালয়ে যান। সেখান থেকে সাড়ে ৫টার সময় শান্ত গাড়ি বহর নিয়ে পৌর শহরের শহীদ রফিক সড়ক হয়ে সিংগাইর বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন। পৌর কার্যালয়ের কাছাকাছি পৌছলে উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সম্পাদক শহিদুর রহমান ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সালামের নেতৃত্বে যুবলীগ এবং ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা লাঠিশোঠা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে শান্ত’র গাড়ি বহরে হামলা চালায়। এ সময় দুইটি প্রাইভেটকারসহ ৮-টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে তারা। হামলার মুখে শান্ত উপজেলার দিকে রওয়ানা হন। মুক্তিযোদ্ধা অফিসের সামনে পৌছলে আবারও আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা তার গাড়ি বহরে হামলা চালায়। হামলায় বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের ২১ জন নেতাকর্মী আহত হয়। তাদের মধ্যে গুরুতর ৩ জনকে ঢাকা ও সাভারের দুটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।
    স্থানীয় একাধিক প্রত্যেক্ষদর্শীরা জানান, মঈনুল ইসলাম খান শান্ত সেখান থেকে চলে যাওয়ার পর নিজেরাই মুক্তিযোদ্ধা অফিস ও নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করে প্রশাসনকে খবর দেয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।
    মঈনুল ইসলাম শান্ত জানান, প্রতীক পাওয়ার পর প্রচার কাজে বাঁধা, নেতাকর্মীদের উপর হামলা, মাইক ভাঙচুর ও পোষ্টার ছিরে ফেলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। বিষয়টি জানাতে সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে যাই। সেখান থেকে প্রচার কাজে যাওয়ার সময় সিংগাইর পৌরসভার সামনে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আমার গাড়ি বহরে হামলা চালায়। পরে নিজেরাই মুক্তিযোদ্ধা কার্যালয় ও আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙ্গচুর করে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে। সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে এ ঘটনার বিচার দাবি করেন তিনি।
    সিংগাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শহিদুর রহমান দাবি করেন, মঈনুল ইসলাম খান শান্তর নেতৃত্বে বিএনপি জামাতের সন্ত্রাসীরা আওয়ামীলীগ প্রার্থী মমতাজ বেগমের নির্বাচনী ক্যাম্প ও মুক্তিযোদ্ধা কার্যালয়ে ভাঙচুর চালিয়েছে। খবর পেয়ে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা এগিয়ে গেলে বিএনপি জামায়াতের সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।
    এ ব্যাপারে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহেলা রহমতুল্লাহ জানান, বিকাল সোয়া ৫টার দিকে বিএনপি প্রার্থী মঈনুল ইসলাম খান শান্ত তার প্রচার কাজে বাঁধা, নেতাকর্মীদের উপর হামলা ও মাইক ভাঙচুরের অভিযোগ জানানোর জন্য আমার কার্যালয়ে এসেছিল। এখান থেকে চলে যাওয়ার পর তার গাড়ি বহরে হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। আওয়ামী লীগের অভিযোগটিও খতিয়ে দেখা হবে বলে জানান তিনি।

    জনশক্তি/এমএইচ

    আরও পড়ুন

    [X]