২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
সিঙ্গাইরে শিশু বলাৎকার মামলার প্রধান আসামী মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেফতার লেবাননে ফের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প, প্রবাসীদের উপচেপড়া ভির লেবানন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত সিঙ্গাইরে দেয়ালে অঙ্কিত বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতি কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলনের আজ শুভ জন্মদিন বিএনপির ৪৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে মালয়েশিয়ায় ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত যে কারণে হত্যার শিকার শিশু আল-আমীন, রহস্য উদঘাটন সিঙ্গাইর থানার ওসির পিতার মাগফিরাত কামনায় দোয়ার মাহফিল কানাডা প্রবাসী প্রয়াত জয়নুল আবেদীন স্বরণে দোয়ার মাহফিল তিনদিন পর সিঙ্গাইরে নিখোঁজ শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার

সাত বছরেও তৃতীয় বছর শেষ করতে পারেনি ডাকসু এজিএস সাদ্দাম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) এজিএস ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন সাত বছরেও তৃতীয় বর্ষ উত্তীর্ণ হতে পারেননি। সম্প্রতি তৃতীয় বর্ষের প্রকাশিত ফলাফলে দেখা গেছে তিনি অকৃতকার্য হয়েছেন।

আইন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল গত ২৭ মে প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যায় ১২৪জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেন। এর মধ্যে ১২১জন পরীক্ষায় পাস করেন। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৫৮ শতাংশ। প্রকাশিত ফলাফলে অকৃতকার্য হওয়ার কারণে সাদ্দাম হোসেনের নাম নেই। সূত্র জানিয়েছে তৃতীয় বর্ষের মোট ৬টি কোর্সের পরীক্ষাতেই সাদ্দাম হোসেন অংশগ্রহণ করেছিলেন।

প্রসঙ্গত, ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ২০১১-১২ সেশনে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে ভর্তি হন। প্রথম বর্ষ উত্তীর্ণ হতে তিনি ৩ বছর সময় নেন। অথ্যাৎ ১২, ১৩, ১৪ সালের প্রথম বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষায় তিনি অকৃতকার্য থাকেন। চতুর্থবারের প্রচেষ্টায় ২০১৫ সালে প্রথম বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষা দিয়ে সাদ্দাম হোসেন প্রথম বর্ষ উত্তীণ হন।

১৬ সালের দ্বিতীয় বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষায় তিনি পাস করতে পারেননি। ১৭ সালে দ্বিতীয় বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষা দিয়ে উত্তীর্ণ হয়ে ১৮ সালে তৃতীয় বর্ষে পদার্পন করেন। কিন্তু তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা যেটা গত জানুয়ারি মাসের ১৪ তারিখে শুরু হয়েছিল সেই পরীক্ষায় তিনি অকৃতকার্য হয়েছেন। সর্বপরি এই ছাত্রনেতা গত সাত বছরে তৃতীয় বর্ষ পার হতে পারেনি।

ঢাবি সিন্ডিকেটের একটি আদেশ আছে, আট বছরের বেশি কোন শিক্ষার্থী ঢাবির নিয়মিত ছাত্র হিসেবে অধ্যায়ন করতে পারবে না। এই ৮ বছরের ভেতর ৬ বছরের স্নাতক ও ২ বছর স্নাতোকোত্তর করতে হবে। কিন্তু সাদ্দাম হোসেন সাত বছরেও বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকের ছাত্র রয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাবির আইন বিভাগের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক ড. নাইমা হক বলেন, যে ছাত্রের কথা বললেন তার রেকর্ড না দেখে কিছুই বলতে পারব না। আর অধ্যয়নের অনুমতির বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দেখে থাকে।

অকৃতকার্য হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে সাদ্দাম হোসেন বলেন, ফেল করার বিষয়টি আমার ব্যক্তিগত ও একাডেমিক বিষয়। তবে আমার ইম্প্রুভমেন্ট দেয়ার সুযোগ আছে।

আরও পড়ুন