২৪শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে জুলহাস হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন মালয়েশিয়ায় স্বাধীনতার সুবর্ন জয়ন্তী ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা। সিঙ্গাইর টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ শতভাগ পাশ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ বুকিত বিনতাং শাখার আলোচনা সভা তিন বছর পর বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেবার সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করায় দোয়া মাহফিল সিঙ্গাইরের জয়মন্টপে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অটোরিক্সার ইঞ্জিনে চাদর পেঁচিয়ে সিঙ্গাইরে ব্যবসায়ীর মৃত্যু সিঙ্গাইরে চোখ উপড়ানো ডাকাতের লাশ উদ্ধার সিঙ্গাইর সদরে ফ্রি রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কার্যক্রম অনুষ্ঠিত বিজয় দিবস উপলক্ষে সিঙ্গাইরে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প
  • প্রচ্ছদ
  • সিঙ্গাইরে অটোরিকশাচালক শরিফ হত্যা, এক নারীসহ ৪ জন গ্রেফতার
  • সিঙ্গাইরে অটোরিকশাচালক শরিফ হত্যা, এক নারীসহ ৪ জন গ্রেফতার

    মোবারক হোসেন:

    মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে অটোরিকশা চালক শরিফ হোসেন হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে এক নারীসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। মঙ্গলবার (২৪ আগষ্ট) সকালে লাশ উদ্ধারের পর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো- উপজেলার আজিমপুর মধ্য পাড়া গ্রামের মৃত ইমান ফকিরের ছেলে মোঃ বাতেন ফকির (২৬), পূর্ব ভাকুম গ্রামের মৃত কোহিনুর বিশ্বাসের ছেলে ছমেদ বিশ্বাস (২৬), আজিমপুর দক্ষিন পাড়া গ্রামের মৃত সাহেব আলী ওরফে সাক্কুর ছেলে মোঃ মিজানুর রহমান (৪০) ও পার্শ্ববর্তী ধামরাই উপজেলার খড়ার চর গ্রামের বরকত আলীর মেয়ে নাসরিন (৩৫)। তাদের রিমাণ্ড চেয়ে বুধবার (২৫ আগষ্ট) বিকাল ৩ টার দিকে আদালাতে পাঠানো হয়।

    থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার (২১ আগষ্ট) সিঙ্গাইর পৌরসভার মধ্য সিঙ্গাইর (পুকুর পাড়া) মহল্লার মৃত শহিদুল ইসলামের ছেলে শরিফ হোসেন অটোরিকশা নিয়ে বাড়ি থেকে বেড় হয়ে নিখোঁজ হন। এরপর তার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিলনা। মঙ্গলবার (২৪ আগষ্ট) সকালে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পৌর এলাকার আজিমপুর গ্রামের হানিফ কোম্পানীর খালি ভিটায় জঙ্গলের ভিতর থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে থানা পুলিশ।

    এ ঘটনায় এদিন রাতে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে থানায় হত্যা মামলা করেন নিহত শরিফ হোসেনের স্ত্রী মনোয়ারা খাতুন ওরফে সাথি।

    এদিকে অটোরিকশা চালক শরিফ হোসেনের লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হাফিজুর রহমানের দিক নির্দেশনায় হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন ও অপরাধীদের গ্রেফতার করতে মাঠে নামে পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্লা ও ওসি তদন্ত শেখ মোঃ আবু হানিফসহ থানার অন্যান্য পুলিশ সদস্যরা।

    থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্লা বলেন, তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার ও গুপ্তচর নিয়োগ করে উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে হত্যাকাণ্ড ও অটোরিকশা ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত সন্দেহে এক নারীসহ চার জনকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের ১০ দিনের রিমাণ্ড চেয়ে বুধবার বিকাল ৩ টার দিকে আদালাতে পাঠানো হয়েছে। রিমাণ্ডে এনে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করলেই হত্যাকাণ্ডের মুল রহস্য উদঘাটন ও প্রকৃত অপরাধীদের নাম পরিচয় বেড়িয়ে আসবে।

    আরও পড়ুন