২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
পুলিশ বাহিনীকে দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত করার পদক্ষেপ সিঙ্গাইরে সাত মামলার পলাতক আসামি ডাকাত রিয়াজুল গ্রেফতার এক দিনে ৪৭ মামলার রায়, হাসিমুখে বাড়ি ফিরলেন ৪৬ দম্পতি নোয়াখালী জেলা রোভারের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ পরশ ও যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের ভার্চুয়াল সভা পৌর নির্বাচন ও দলীয় কাউন্সিলকে সামনে রেখে সিঙ্গাইর উপজেলা আ.লীগের বর্ধিত সভা গৃহকর্মীকে ধর্ষণের পর সাততলা থেকে ফেলে দেওয়া হয় ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ: মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ঢাকা মহানগর উত্তর আ.লীগের অর্থ সম্পাদক হলেন শিল্পপতি সালাম চৌধুরী টিউশন ফি ছাড়া অন্য খাতে অর্থ নিতে পারবে না স্কুল-কলেজ
  • প্রচ্ছদ
  • সিঙ্গাইরে শিশু সন্তানকে হত্যার অভিযোগে বাবার বিরুদ্ধে মামলা




  • সিঙ্গাইরে শিশু সন্তানকে হত্যার অভিযোগে বাবার বিরুদ্ধে মামলা

    জনশক্তি রিপোর্ট:

    পারিবারিক কলহের জেরে গত মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) সকালে স্ত্রীকে মারধর করে তার বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় স্বামী। পরে এক বছর বয়সী ওরশজাত শিশু সন্তানকে নিয়ে বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যায় পিতা। এর দুই দিন পর গতকাল (৬ নভেম্বর) শুক্রবার সন্ধায় নদীর পাড় থেকে হাত পা বিহীন ওই শিশুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই নির্মম ঘটনাটি ঘটেছে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার চান্দহর ইউনিয়নের ফতেপুর গ্রামে। নিহত শিশুর নাম মীম আক্তার। সে ওই গ্রামের আল-আমীনের মেয়ে। এ ঘটনায় স্বামী আল-আমীন (৩০) তার বাবা আব্দুল হালিম ও মা নাছিমা আক্তারসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা মামলা করেছেন শিশুটির মা হোসনে আরা বেগম।

    থানা পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চান্দহর ইউনিয়নের ফতেপুর গ্রামের আব্দুল হালিমের ছেলে আল-আমিন গত ৩ নভেম্বর তার স্ত্রীকে হোসনে আরাকে মারধর করে তার বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। ওই দিনই এক বছর বয়সী ওরশজাত শিশু সন্তান মীম আক্তারকে নিয়ে বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যায় আল-আমীন। নিহত মীম আক্তারের মামা লোকমান হোসেন জানান, বিয়ের পর থেকে প্রায়ই আমার বোন হোসনে আরাকে তার স্বামী আল-আমিন শারীরিক ভাবে নির্যাতন করতো। গত মঙ্গলবার সকালে বোন হোসনে আরাকে প্রচন্ড মারধর করে তার স্বামী আল-আমীন। এক পর্যায়ে শিশু সন্তান মীম আক্তারকে রেখে হোসনে আরাকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে আমাদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। অনেক খোঁজাখুজি করেও স্বামী সন্তানের সন্ধান না পাওয়ায় গত ৪ নভেম্বর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন হোসনে আরা।

    তিনি আরো জানান, গতকাল শুক্রবার বিকালে উপজেলার চান্দহর ইউনিয়নের কালিগঙ্গা নদীর বার্তা এলাকায় মাছ ধরার সময় জনৈক জেলের জালে উঠে আসে হাত পা বিহীন মীম আক্তারের লাশ। অজ্ঞাত ওই জেলে ভয়ে কাউকে কিছু না বলে নদীর পাড়ে লাশ ফেলে রেখে চলে যায়। এদিন সন্ধার দিকে ভাগ্নি মীম আক্তারের লাশটি নদীর তীরে পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা বিষয়টি আমাদেরকে জানান। পরে লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। ধারনা করছি, বোন জামাই আল-আমীনই তার শিশু সন্তান মীম আক্তারকে হত্যা করে লাশ নদীতে ফেলে দিয়েছে।

    এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে আলামিন (৩০), তার পিতা-আঃ হালিম (৫৫), মা নাছিমা বেগমসহ (৪৮) ৬ জনকে আসামী করে থানায় হত্যা মামলা করছেন শিশুটির মা হোসনে আরা। মামলার অন্য আসামীরা হলেন, আল-আমীনের ভাই আজিজুল (৩৫), বোন মুক্তা আক্তার (২০) ও স্বজন ছাবিনা আক্তার (৩২)।

    শান্তিপুর তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ লুৎফর রহমান জানান, খবর পেয়ে শিশু মীমের খন্ডিত মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাত পা বিচ্ছিন্ন শিশুটির গলা কাটা ও শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে, শিশুটিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা করে গুম করার উদ্দেশ্যে লাশ টুকরো টুকরো করে নদীতে ফেলে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় আল-আমীন, তার বাবা-মাসহ তাদের পরিবারের ৬ জনের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা মামলা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

    আরও পড়ুন