১১ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
মানিকগঞ্জে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ৭ জন সালথায় সহিংসতায় ৪ হাজার জনকে আসামি করে মামলা করেছে পুলিশ ‘শিশু বক্তা’ মাওলানা রফিকুল ইসলামকে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নেয়ার অভিযোগ! সিঙ্গাইর সদর ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক সেলিম ও যুগ্ম-আহ্বায়ক সালাম ফরিদপুরের সালথা উপজেলা পরিষদ ও থানা ঘেরাও, এসিল্যান্ড অফিসে আগুন সিঙ্গাইরে লকডাউন কার্যকরে তৎপর প্রশাসন করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও অপরাধ নির্মূলে তৎপর সিঙ্গাইর থানা পুলিশ আসুন, ইসলামের চেতনাকে জাতীয় জীবনের সব স্তরে প্রতিষ্ঠা করি: প্রধানমন্ত্রী আলেমদের উপর হামলা ও হত্যার প্রতিবাদে যুবলীগ ছাড়লেন মনির লেবাননে দূতাবাসের উদ্যোগে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালিত

স্বাধীনতা যুদ্ধে আলেম সমাজের অবদান

জনশক্তি ডেস্ক:

আজ ১৬ ডিসেম্বর। মহান বিজয় দিবস। বাঙালি জাতির জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জনের দিন। পাকিস্তানি শাসকদের শোষণ-নিপীড়ন আর দুঃশাসনের প্রাচীর চিরে ১৯৭১ সালের এদিনে বিজয়ের লাল সূর্য উদয় হয়েছিল সবুজ বাংলার আকাশে। অবসান হয়েছিল পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর সাড়ে তেইশ বছরের নির্বিচার শোষণ, বঞ্চনা আর নির্যাতনের কালো অধ্যায়। এ অর্জন আমাদের সবার। এখানে কারো অবদানকে অস্বীকার করা গোটা মুক্তিযুদ্ধকে অস্বীকার করার নামান্তর। কিন্তু একটি দুঃখজনক সত্য হলো, আমরা সব শহীদদের আত্মত্যাগকে মর্যাদা দিতে পারিনি।

১৯৭১ সালে কোনো কোনো ওলামায়ে কেরাম বয়ান-বক্তৃতার মাধ্যমে জনসাধারণকে মহান মুক্তিযুদ্ধে উদ্বুদ্ধ করেছেন। আবার কেউ কেউ নিজের জীবন বাজি রেখে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে লড়াই করেছেন। আলেম সমাজের মাঝে যিনি সর্বপ্রথম পশ্চিম পাকিস্তানের জালেম শাসকদের জুলুম-অত্যাচারের বিরুদ্ধে রাজপথে নেমে মুক্তি সংগ্রামের হুংকার দিয়েছিলেন এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে সর্বদলীয় মুক্তি সংগ্রাম পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছিলেন, তিনি আলেম সমাজেরই এক উজ্জ্বল নক্ষত্র মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী (রহ)। মহান মুক্তিযুদ্ধে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালনকারী ও স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক ছিলেন আলেম সমাজেরই আরেক উজ্জ্বল নক্ষত্র মাওলানা আব্দুর রশিদ তর্কবাগীশ (রহ)। তার পরামর্শে অসংখ্য মানুষ মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। শুধু তাই নয়, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় আলেমকুল শিরোমনি হযরত মাওলানা হাফেজ্জি হুজুর (রহ) দ্যর্থহীন কণ্ঠে ঘোষণা করেছিলেন, পাকিস্তানীরা বাঙালিদের উপর জুলুম করেছে, সুতরাং তারা জালেম। জুলুম আর ইসলাম এক হতে পারে না। তুমি যদি মুসলমান হও, তবে পাকিস্তানিদের পক্ষে যাও কিভাবে? এটা তো জালেমের বিরুদ্ধে মজলুমের প্রতিরোধ।

এছাড়াও শহীদ তিতুমীর, হাজী শরীয়তুল্লাহ্, দুদু মিয়া, মাওলানা গাজী ইমামুদ্দীন বাঙালি (নোয়াখালী), আল্লামা আসআদ মাদানী (রহ), আল্লামা লুত্ফুর রহমান বরুণী (রহ.), চরমোনাইর পীর ইসহাক (রহ.), আল্লামা কাজী মু. তাসিম বিল্লাহ, আল্লামা মুফতি নুরুল্ল্যাহ (রহ.), আল্লামা এমদাদুল হক আড়াইহাজারী (রহ.), আল্লামা শামসুদ্দিন কাসেমী (রহ.)সহ অসংখ্য আলেম ভারতবর্ষের স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে শুরু করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের অসামান্য ভুমিকা রাখেন।

২৬ শে মার্চ পাক হানাদারদের গুলিতে নির্মমভাবে শহীদ হন হাতিরপুল জামে মসজিদের ইমাম। বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষ আলেম হযরত মাওলানা কাজী মু’তাসিম বিল্লাহ (রহ) এক সাক্ষাত্কারে বলেছিলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় আমার দায়িত্ব ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা ও যুব সমাজকে যুদ্ধে অংশগ্রহণে উত্সাহিত করা’। এ ছাড়াও আল্লামা দানেশ, মাওলানা ওবায়দুল্লাহ বিন সাইদ জালালাবাদী, মাওলানা আহমদুল্লাহ আশরাফ, মাওলানা এমদাদুল হক আড়াইহাজারী, মাওলানা ফরিদউদ্দিন মাসউদসহ আরো অনেক দেশপ্রেমিক ওলামায়ে কেরাম সার্টিফিকেট প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা।

১৯৪৭ সালে যখন ভারত ও পাকিস্তান নামে দু’টি স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্ম হচ্ছিল, তখন বাংলার প্রখ্যাত আলেম মাওলানা মোহাম্মদ শামসুল হুদা পাঁচবাগী পাকিস্তান রাষ্ট্রের বিরোধিতা করেন এবং বাংলা ভাষাভাষি অঞ্চল নিয়ে স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার দাবি তোলেন।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রকাশিত রাজনীতিতে বঙ্গীয় ওলামার ভূমিকা নামক গ্রন্থে ড. মুহাম্মদ আবদুল্লাহ লিখেছেন, হাশেম-সোহরাওয়ার্দী ও কিরণ শংকরের স্বাধীন বাংলা প্রতিষ্ঠার দাবির বেশ আগেই মাওলানা মুহাম্মদ শামসুল হুদা পাঁচবাগী তার প্রচারপত্রের মাধ্যমে স্বাধীন বাংলা প্রতিষ্ঠার দাবি উপস্থাপন করেন। এ নিরিখে তাকে স্বাধীন বাংলা প্রতিষ্ঠার প্রথম স্বপ্নদ্রষ্টা বলা যেতে পারে।

শুধু তাই নয়। গত ১১ এপ্রিল ২০১৭ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেম-ওলামার সঙ্গে এক ঐতিহাসিক বৈঠকে মিলিত হয়েছিলেন। ওই বৈঠকে তিনি বলেন, ‘যারা দেওবন্দ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে তাদের বিরাট ভূমিকা ছিল। তারাই প্রথম ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন শুরু করেন। কাজেই আজকে যে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি, সেখানে তাদের অনেক ভূমিকা রয়েছে। কারণ সেই ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন থেকেই এ যাত্রা শুরু হয়। ’ (দৈনিক কালের কণ্ঠ, ১৪/০৪/২০১৭)। শুধু ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনই নয়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধেও অনেক আলেম-ওলামা দেশের জন্য বুকের তাজা রক্ত দিয়েছেন।

বাংলাদেশের বিখ্যাত আলেম ও বুজর্গ মাওলানা মোহাম্মদুল্লাহ হাফেজ্জি হুজুর (রহ.) সে সময় স্পষ্ট ভাষায় বলেছিলেন, ‘এ যুদ্ধ ইসলাম আর কুফরের যুদ্ধ নয়, এটা হলো জালেম আর মজলুমের যুদ্ধ। পাকিস্তানিরা জালেম, এদেশের বাঙালিরা মজলুম। তাই সামর্থের আলোকে সবাইকেই মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে হবে এবং এটাকে প্রধান কর্তব্য বলে মনে করতে হবে। ’ (ইত্তেফাক)

বাংলার মুসলিমদের মুক্তিযুদ্ধে উদ্বুদ্ধ করতে শহীদ বুদ্ধিজীবী মাওলানা অলিউর রহমান রচনা করেছিলেন—‘ছয় দফা ইসলামবিরোধী নহে’, ‘শরিয়তের দৃষ্টিতে ছয় দফা’, ‘জয় বাংলা ও কয়েকটি স্লোগান’ ইত্যাদি। পরে ১৪ ডিসেম্বর হানাদার বাহিনীর বুলেটে অসংখ্য বুদ্ধিজীবীর সঙ্গে শাহাদাত বরণ করেন। (কালের কণ্ঠ)

একাত্তরের মুক্তিসংগ্রামে যোগ দিয়েছিলেন সশস্ত্র যোদ্ধা ছাগলনাইয়ার মাওলানা মাকসুদ ভূঁইয়া, আল্লামা এমদাদুল হক আড়াইহাজারী (রহ), হাতিয়ার মাওলানা মোস্তাফিজ, চট্টলার কমান্ডার মাওলানা সৈয়দ প্রমুখ।

এছাড়া চরমোনাইয়ের মাওলানা ইউসুফ, বায়তুল মোকাররমের মুয়াজ্জিন আহমদুল্লাহ আশরাফ, মাওলানা এমদাদুল হক আড়াইহাজারীসহ অনেকেই একাত্তরের মুক্তিসংগ্রামে সরাসরি যুদ্ধ করেছেন।

মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজবাড়ী জেলখানায় আটক বিহারীদের জয় বাংলার পক্ষে সমর্থন দেওয়ার অনুরোধ করায় প্রাণ দিতে হয়েছিল মাওলানা কাজী ইয়াকুব আলীকে। পাকিস্তানি বাহিনী রাজবাড়ী দখলের পর বিহারীরা জেলখানা থেকে ছাড়া পেয়ে মাওলানা কাজী ইয়াকুব আলীকে গলা কেটে হত্যা করে। তারপর তার পেটের মাঝখানে পাকিস্তানি পতাকা পুঁতে দিয়ে বলে, ‘আভি শালা জয় বাংলা বোলো’। (দৈনিক সংগ্রাম ৭/১১/২০১৫)

স্বাধীনতা যুদ্ধে আলেমদের অবদান অসামান্য। মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী আলেম-ওলামাদের নিয়ে প্রামাণ্যনির্ভর একটি বৃহৎ গ্রন্থ রচনা করেছেন প্রখ্যাত সাংবাদিক শাকের হোসাইন শিবলী। ‘আলেম মুক্তিযোদ্ধার খোঁজে’ শিরোনামের বইটিতে তিনি দেশের বিখ্যাত আলেম-মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান ও জীবন্তিকা তুলে ধরেছেন। তথ্যসমৃদ্ধ গ্রন্থটি পড়লে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে আলেমদের অবদান ও কীর্তি সম্পর্কে কিছুটা হলেও ধারণা পাওয়া যাবে।

আল্লাহ তাআলা মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের ওপর শান্তি বর্ষণ করুন। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সঠিক চিন্তা-আদর্শ লালনের তাওফিক দান করুন।

লেখক,
ইসলামী ফিকাহ ও ইতিহাসবিষয়ক গবেষক

আরও পড়ুন